রাজনীতি

আ’লীগ নেতাকে মা’রধরের ঘটনায় সাবেক ইউপি সদস্য গ্রে’প্তা’র

চট্টগ্রামের পটিয়ায় আওয়ামী লীগ নেতাকে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে মা’রধরের ঘটনার মূল হোতা ইন্দ্রজিত চৌধুরী লিও ওরফে লিও মেম্বারকে (৪৫) গ্রে’প্তা’র করেছে পু’লিশ।

শনিবার (১৪ মে) ভোরে চট্টগ্রাম মহানগরীর আশকার দিঘীর পাড় এলাকা থেকে তাকে গ্রে’প্তা’র করা হয়। গ্রে’প্তা’র ইন্দ্রজিত চৌধুরী পটিয়া উপজে’লার হাইদগাঁও ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের মৃ’ত নেপাল চন্দ্র চৌধুরীর ছে’লে।

এর আগে গত ২৯ এপ্রিল বিকেলে পটিয়া থা’নাধীন হাইদগাঁও ইউনিয়নের পশ্চিম হাইদগাঁও গাউছিয়া কমিউনিটি সেন্টারের সামনে আওয়ামী লীগ নেতা জিতেন গুহকে হা’ম’লার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর ইফতার মাহফিলের আয়োজন পণ্ড হয়ে যায়। জিতেন কান্তি গুহ হাইদগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদ্য সাবেক সভাপতি।

পু’লিশ জানায়, ২৯ এপ্রিল হাইদগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ইফতার পার্টির আয়োজন করে। এতে ইউপি চেয়ারম্যান বিএম জসিমকে দাওয়াত না দেওয়া ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি জিতেন কান্তি গুহকে দাওয়াত দেওয়া নিয়ে বাকবিতণ্ডা হয়। এরপর জিতেন গুহকে বেদমভাবে মা’রধর করে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখে। এ হা’ম’লার একটি ছবি তাৎক্ষণিক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাই’রাল হলে দেশজুড়ে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

ঘটনার পর জিতেন গুহের ভাই বাদী হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান বিএম জসিম ও সাবেক ইউপি সদস্য ইন্দ্রজিত চৌধুরী লিওসহ সাতজনের বি’রু’দ্ধে মা’ম’লা করা করেন। ঘটনার পর মা’ম’লার ৪নং আ’সা’মি ইন্দ্রজিত চৌধুরী লিও পলাতক ছিলেন। আজ ভোরে গো’প’ন সংবাদের ভিত্তিতে নগরীর আশকার দীঘি পাড় এলাকার এক আত্মীয়ের বাসা থেকে তাকে গ্রে’প্তা’র করে পটিয়া থা’না পু’লিশ। এই ঘটনায় ইন্দ্রজিত চৌধুরীসহ এ পর্যন্ত পাঁচজনকে গ্রে’প্তা’র করেছে পু’লিশ।

পটিয়া থা’নার পু’লিশ পরিদর্শক (ত’দ’ন্ত) রাশেদুল ই’স’লা’ম জানান, আওয়ামী লীগ নেতা জিতেন কান্তি গুহকে মা’রধরের ঘটনায় এর আগে আরও চারজনকে গ্রে’প্তা’র করে আ’দা’লতে পাঠানো হয়েছে। ইন্দ্রজিতকেও জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রি’মা’ন্ডের আবেদন করে আ’দা’লতে পাঠানো হবে।

 

Back to top button