জাতীয়

‘নিত্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণ নয়, স্থিতিশীল রাখতে চাই’

নিত্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণ নয়, স্থিতিশীল রাখতে চান বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

সোমবার (১৬ মে) বেলা ১১টায় সচিবালয়ের গণমাধ্যম কেন্দ্রে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ) আয়োজিত ‘বিএসআরএফ সংলাপ’-এ তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় ভোজ্যতেল ব্যবসায়ীদের বি’রু’দ্ধে ব্যবস্থা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘প্রচুর ব্যবসায়ীকে আম’রা ধরছি। তেল জ’ব্দ করে ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করছে ভোক্তা অধিকার। সেখানে অনেকের বি’রু’দ্ধে আইনি ব্যবস্থাও নেওয়া হয়েছে এবং জে’লেও পাঠানো হয়েছে। তবে এমন কোনো পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চাই না, যাতে বাজারে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়।’

মন্ত্রী বলেন, ‘রমজান সংযমের মাস। ব্যবসায়ীরা জানে ঈদের পর দাম বাড়বে। তারা সেই সুযোগ নিয়েছে। তবে আমাদের ভুল হয়েছে টানা দু-মাস তেলের দামটা নির্ধারণ করিনি। যদি করতাম, তাহলে তারা সুযোগটা নিতে পারত না। এ সময়ের মধ্যে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দামটা বেড়েছিল, তাই সেটি আগে ফিক্স করলে সমস্যাটা হতো না।’

ব্যবসায়ীরা সরকারকে নিয়ন্ত্রণ করে কি না–জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সরকারের বাজার নিয়ন্ত্রণ করা উচিত নয়। আম’রা ব্যবসায়ীবান্ধব। আম’রা আন্তর্জাতিক বাজারের দাম অনুযায়ী দাম ফিক্সআপ করে দিই। সে অনুযায়ী বাজারে দামটা থাকলে বাজার স্থিতিশীল থাকবে। আম’রা নিয়ন্ত্রণ করতে চাই না, বাজার স্থিতিশীল রাখতে চাই।’

পেঁয়াজের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘পেঁয়াজের আইপি বন্ধ করে দিয়েছে কৃষি মন্ত্রণালয়। কৃষকরা যাতে দাম পায়, সেটি দেখতে হবে। আম’রা দেখছি কৃষকরা যাতে কেজি প্রতি অন্তত ২৫ টাকা পায়। বাকি ট্রান্সপোর্টসহ অন্য খরচ মিলে ঢাকার মানুষ ৪৫ টাকায় যাতে খেতে পারে। কৃষকরা যাতে দাম পায় এবং ভোক্তারাও যাতে কম দামে পেঁয়াজ কিনতে পারে, সেটি আম’রা দেখছি।’

বর্ডার হাট স’ম্প’র্কে তিনি বলেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা বলেছিলাম বিষয়টি নিয়ে। আশা করছি, তিন-চারটি প্রোপোজাল দেবে। মিজো’রামে গিয়েও আলোচনা হয়েছে। ছোট রাজ্য হলেও তারা এটি খুব পজিটিভলি দেখছে। এটা সাজেকের কাছাকাছি, ২০-২৫ কিলোমিটার দূরে। এ বিষয়টি নিয়ে দ্রুত দেখতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

বিএসআরএফ সভাপতি তপন বিশ্বা’সের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাসউদুল হকের সঞ্চালনায় সংলাপে অন্যদের মধ্যে সংগঠনের যুগ্ম সম্পাদক মেহ্দী আজাদ মাসুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আকতার হোসেন, অর্থ সম্পাদক মো. শফিউল্লাহ সুমন, সদস্য ইসমাইল হোসাইন রাসেল, হাসিফ মাহমুদ শাহ উপস্থিত ছিলেন।

Back to top button