জাতীয়

জ্ঞানবাপী ম’স’জিদের সমীক্ষা রিপোর্ট জমা’র জন্য আরো সময় চাইল কোর্ট কমিশন

জ্ঞানবাপী ম’স’জিদের রিপোর্ট মঙ্গলবার (১৭ মে) বারাণসীর আ’দা’লতে জমা দেয়ার কথা ছিল। এদিকে সোমবার জ্ঞানবাপী ম’স’জিদের ওজুখানায় একটি পাথর নিয়ে মা’ম’লা রুজু হয়েছে আ’দা’লতে। মা’ম’লাকারীর দাবি, সেই পাথর আদতে ‘শি’বলি’ঙ্গ’। সেই মা’ম’লা দায়েরের পরই ম’স’জিদের ওজুখানা সিল করার নির্দেশ দেয় আ’দা’লত।

যদিও সেই নির্দেশের পাল্টা মা’ম’লা দায়ের করবে বলে জানিয়েছেন ম’স’জিদ পরিচালনা কমিটির আইনজীবী। ম’স’জিদ কর্তৃপক্ষের দাবি, ওই পাথর শি’বলি’ঙ্গ নয় বরং এটি ফোয়ারা।আর এসব বিতর্কের মাঝেই সমীক্ষার রিপোর্ট জমা দেয়ার সময়সীমা মেয়াদ বৃদ্ধির জন্য আ’দা’লতের কাছে আবেদন জানিয়েছে কোর্ট কমিশনার।

সোমবার বারাণসী আ’দা’লতের নির্দেশে সিল করা হয় জ্ঞানবাপী ম’স’জিদের ওজুখানা। সেই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েও আঞ্জুমানে ই’ন্তেজামিয়া ম’স’জিদ কমিটি আবেদন দায়ের করবে বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, সোমবার তৃতীয় দিনের সমীক্ষা চলাকালীন ম’স’জিদের ওজুখানায় একটি পাথর মেলে। এক আইনজীবী সেই পাথরকে শি’বলি’ঙ্গ দাবি করে আ’দা’লতের দ্বারস্থ হন এবং জায়গাটিকে সিল করার আবেদন জানান। সেই প্রেক্ষিতে ওজুখানা সিলের নির্দেশও দেয় বারাণসী আ’দা’লত।

তবে মু’সলিম পক্ষের দাবি, যে পাথর মিলেছে, তা শি’বলি’ঙ্গ নয় বরং ফোয়ারা। বি’ভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে।উল্লেখ্য, আ’দা’লতের নির্দেশে ১৪ মে শুরু হয় ভা’রতের উত্তর প্রদেশের কাশীর জ্ঞানবাপী ম’স’জিদের সমীক্ষার কাজ। দিল্লির বাসিন্দা রাখি সিং, লক্ষ্মী দেবী, সীতা সাহু এবং অন্যদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বারাণসী জে’লা আ’দা’লতের নির্দেশে এই সমীক্ষা চালানো হয়।

এর আগেও একবার সমীক্ষা শুরু হয়, তবে তা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। সমীক্ষা ও ভিডিওগ্রাফির সময় বারাণসীর জ্ঞানবাপী-শ্রীঙ্গার গৌরী কমপ্লেক্সের খুব কাছেই দুটি স্বস্তিকের চিহ্ন দেখা গিয়েছিল বলে দাবি করেছিলেন সমীক্ষার ভিডিওগ্রাফার। এরপর উ’ত্তে’জ’না ছড়ায়। পরে বি’ক্ষো’ভের মুখে সমীক্ষা স্থগিত রাখা হয়।

এরপরই মু’সলিম পক্ষ কমিশনারের অ’পসারণের দাবি জানায়। তবে আ’দা’লত কমিশনার বদলের আর্জি খারিজ করে। উপরন্তু দ্রুত সমীক্ষা সম্পন্ন করে রিপোর্ট জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়।এ অবস্থায় সমীক্ষা চলাকালীন ম’স’জিদের ভিতরে একটি এলাকায় শি’বলি’ঙ্গ মিলেছে বলে দাবি উঠলে সেই নিয়ে মা’ম’লা দায়ের হয়।

Back to top button