জাতীয়

বাণিজ্যমন্ত্রী বললেন, সয়াবিন শরীরের জন্য ক্ষতিকর

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, সয়াবিন তেল শরীরের জন্য ক্ষতিকর। সয়াবিনের বিকল্প হিসেবে রাইস ব্র্যান ও সরিষা উৎপাদন বাড়ানোর পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার (১৮ মে) সচিবালয়ে দ্রব্যমূল্য পর্যালোচনা-সংক্রান্ত টাস্কফোর্স কমিটির দ্বিতীয় সভা শেষে বাণিজ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, দেশে এখন রাইস ব্র্যান ৫০ থেকে ৬০ হাজার টন উৎপাদন হয়। এটিকে সাত লাখ টনে নিয়ে যাওয়া সম্ভব। সেটি করতে পারলে মোট চাহিদার ২৫ শতাংশ পূরণ করা সম্ভব হবে। তা ছাড়া সয়াবিনের চেয়ে রাইস ব্র্যান ভালো। সয়াবিন তেল শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

রাইস ব্র্যান তেলের উৎপাদন বাড়ানো প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, দেশে সাত লাখ টন রাইস ব্র্যান তেল উৎপাদন সম্ভব। তাই আম’দানির ওপর নির্ভরশীল না থেকে সরকার রাইস ব্র্যান তেলের উৎপাদনের দিকে নজর দিচ্ছে। সেটা হলে ২৫ শতাংশ তেলের চাহিদা পূরণ সম্ভব হবে।

এছাড়াও ভা’রতের গম রফতানি বন্ধ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ভা’রত গম রফতানি বন্ধ করলেও সরকারি পর্যায়ে আম’দানি বন্ধ হয়নি। তাছাড়া প্রতিবেশী দেশ হিসেবে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধান করা যাবে। তাদের রফতানি বন্ধের প্রভাব বাংলাদেশে পড়বে না।

পেঁয়াজ আম’দানি বন্ধ থাকা প্রসঙ্গে মন্ত্রী জানান, পেঁয়াজের দাম ভালো পাওয়ায় কৃষকরা খুশি। পেঁয়াজের সংকটের সম্ভাবনা নেই।মন্ত্রী বলেন, পুরনো চালের শেষ সময় এবং নতুন চালের আগমনের সন্ধিক্ষণে অ’তিবৃষ্টির কারণে মিলারদের চাতাল চালু রাখা সম্ভব না হাওয়ায় বর্তমানে চালের দাম বেড়েছে। এ অবস্থায় চালের দাম নিয়ন্ত্রণে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার।

বিএনপির করা অ’ভিযোগের ব্যাপারে মন্ত্রী বলেন, পরিকল্পনার অভাবে চালের দাম বেড়েছে বলে বিএনপির অ’ভিযোগ সত্য নয়। কৃষককে চালের ন্যায্যমূল্য দিতে নানা প্রয়াস নিচ্ছে সরকার। রাজনৈতিক ফায়দা লুটতেই বিএনপি এ অ’ভিযোগ করছে।

সভায় উপস্থিত বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ বলেন, বিশ্বব্যাপী দ্রব্যমূল্যে অস্থির অবস্থা চলছে। অনেক পণ্যের ঘাটতিও আছে। বাড়ছে দামও। তবে সেদিক থেকে বাংলাদেশ এখনো বেশ স্বস্তিতে রয়েছে। দেশে যা হয়েছে, সেটি কিছু ব্যবসায়ীর অ’পতৎপরতার কারণেই। যার দায় পুরো ব্যবসায়ী সমাজের ওপর পড়ছে। সরকার সেদিক থেকে সতর্ক রয়েছে। প্রয়োজনীয় যা করার, তা করা হচ্ছে। তবে শ’ঙ্কা কাটেনি।সভায় দ্রব্যমূল্যের সঙ্গে স’ম্প’র্কিত সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ এবং গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধি ছাড়াও এফবিসিসিআইসহ খাত সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী নেতারা উপস্থিত ছিলেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

Back to top button