জাতীয়

‘বাংলাদেশের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ স’ম্প’র্ক গড়তে চায় যু’ক্তরাষ্ট্র’

বাংলাদেশ ও মা’র্কিন যু’ক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার স’ম্প’র্ককে আলোচনার মাধ্যমে কীভাবে আরও এগিয়ে নেওয়া যায় সে বিষয়ে পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে আলাপ হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশে নিযু’ক্ত মা’র্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস।

বুধবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের একথা জানান মা’র্কিন রাষ্ট্রদূত।মা’র্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, তার দেশ বাংলাদেশের সঙ্গে কার্যকর ঘনিষ্ঠ স’ম্প’র্ক গড়ে তুলতে আগ্রহী। এ বছর ওয়াশিংটন ও ঢাকার মধ্যে বিভিন্ন পর্যায়ের বেশ কয়েকটি দ্বিপাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘কীভাবে আম’রা আমাদের স’ম্প’র্ককে আরও এগিয়ে নিতে পারি এবং কীভাবে আম’রা কার্যকর ঘনিষ্ঠ স’ম্প’র্ক গড়ে তুলতে পারি- তা নিয়ে আমাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে।’

বৈঠকে তাদের মধ্যে বাংলাদেশ ও যু’ক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক ইস্যু এবং সেগুলো কীভাবে সামনে এগিয়ে নেওয়া যায়- তা নিয়ে তাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে বলে জানান তিনি। রাষ্ট্রদূত বলেন, বিগত দুই মাসে দু’দেশের মধ্যে যেসব বিষয় নিয়ে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক হয়েছে, তারা সেসব ইস্যু নিয়েও আলোচনা করেছেন। এ ছাড়া তাদের মধ্যে আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিতব্য বাংলাদেশ-যু’ক্তরাষ্ট্র উচ্চপর্যায়ের অর্থনৈতিক ফোরামের ব্যাপারেও আলোচনা হয়।

বর্তমানে বাংলাদেশ ও যু’ক্তরাষ্ট্রের মধ্য নবম প্রতিরক্ষা সংলাপ হচ্ছে। দু’দেশই পরিবর্তিত ভূ-রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নিরাপত্তা সহযোগিতা জো’রদারে ইচ্ছুক।

বৈঠকে ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের নিরাপত্তা পরিবেশ, দু’দেশের সৈন্যদের যৌথ মহড়া, সশস্ত্র বাহিনী আধুনিকায়ন, জেনারেল সিকিউরিটি অব মিলিটারি ইনফরমেশন এগ্রিমেন্ট (জিএসওএমআইএ), সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা, মানবিক ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা গুরুত্ব পায়।

গত ৪ এপ্রিল ওয়াশিংটনে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন ও মা’র্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেনের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও যু’ক্তরাষ্ট্রের কূটনৈতিক স’ম্প’র্কের ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন করা হয়। একই মাসে ওয়াশিংটন ডিসিতে বাংলাদেশ ও যু’ক্তরাষ্ট্রের মধ্যে অষ্টম দফা নিরাপত্তা আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।

Back to top button