জাতীয়

অর্থনীতির ওপর চাপ কমাতে করণীয় ঠিক করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

কোভিড-১৯ এবং বর্তমান রা*শি*য়া-ই*উ*ক্রে*ন যু’দ্ধের প্রভাবে সৃষ্ট বৈশ্বিক সংকটে দেশের অর্থনীতির ওপর চাপ কমাতে করণীয় ঠিক করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।বৃহস্পতিবার (১৯ মে) মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে দ্রব্যমূল্য নিয়ে আলোচনাকালে এ নির্দেশনা দেওয়া হয় বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ই’স’লা’ম।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভা’র বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সরকার প্রধান শেখ হাসিনা।পরে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ই’স’লা’ম সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এ কথা জানায়।বর্তমান দ্রব্যমূল্য পরিস্থিতি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, দ্রব্যমূল্য নিয়ে ডিটেইল আলোচনা হয়েছে। কমা’র্স অ্যান্ড ফাইন্যান্স মিনিস্ট্রিকে কতগুলো ইন্সট্র্যাকশন দেওয়া হয়েছে, পর্যাপ্ত এবং কম্প্রিহেনসিভ ব্যবস্থা নিয়ে সবার কাছে তুলে ধ’রার জন্য।

তিনি বলেন, বিশেষ করে কীভাবে আম’রা এই যে জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাচ্ছে বা সা’প্লাই কমে যাচ্ছে, এই জিনিসগুলো কিভাবে হ্যান্ডেল করতে পারব। কোন জায়গায় রেস্ট্রিকশন দিলে ভালো হবে বা ওপেন করলে ভালো হবে। এগুলো দু-তিন দিনের মধ্যে আলাপ-আলোচনা করে তুলে ধরতে হবে। প্লাস ডলারের যে ক্রাইসিস হচ্ছে এটা কিভাবে সলভ করা যায় এটা বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে বসে, দু-তিনদিনের মধ্যে প্রেসের সামনে বসার জন্য।

কম গুরুত্বপূর্ণ পণ্য আম’দানিতে ট্যাক্স বাড়ানোর চিন্তাভাবনার কথা জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, তাদের বলা হয়েছে, এই সিনারিওতে আমাদের কী করণীয়, যেমন মনে করেন আপনি একটি সাজেশন দিলেন ফল আনার মধ্যে ট্যাক্স বাড়িয়ে দেন যাতে ফল বেশি না আসে। এখন বৈশাখ মাস, এখন তো আমা’র আম-জাম-কাঁঠাল পর্যাপ্ত থাকবে। এরকম একটি সাজেশন আপনি দিলেন এটা বিবেচনা করে লজিক্যাল কিনা সেটা বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া।

খন্দকার আনোয়ারুল ই’স’লা’ম বলেন, ৮ বা ৯ হাজার কোটি টাকার ফল আসে বছরে। ৯ হাজার কোটি টাকা ইজ মোর দ্যান ওয়ান বিলিয়ন ডলার। এখন ট্যাক্স যদি সাময়িকভাবে বাড়ানো হয় বা অন্য যে ফ্যান্সি আইটেমগুলো আছে সেগুলোতে ট্যাক্স বাড়ান, এই বিষয়গুলো আলোচনা করে দুই-তিনদিনের মধ্যে একটি সিদ্ধান্ত নিতে বলা হয়েছে।

গণমাধ্যমকে গঠনমূলক আলোচনার করার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আপনাদের কাছেও আমাদের একটি আবেদন যে, গঠনমূলক জিনিসগুলো আলোচনা করতে হবে। এই যে কোভিড রিকভা’র করা যাচ্ছিল কিন্তু ইউরোপের যে যু’দ্ধটা এটা ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ইকোনোমিক ক্রাইসিস শুধু না, সা’প্লাইয়েরও একটি ক্রাইসিস হচ্ছে। কারণ রাশান দেশগুলো হলো ফুড এবং এনার্জি সা’প্লাইয়ে ওয়ার্ল্ডে সারপ্লাস।

তিনি আরও বলেন, এখন এখান থেকে যদি না বের হতে পারে ফুড এবং এনার্জি তাহলে সারা পৃথিবীই কিন্তু ভুগছে। কালই দেখলাম নাইন পারসেন্ট ইনফ্লেশন হয়েছে গ্রেট ব্রিটেনে। আ’মেরিকাতে এইট পারসেন্টের বেশি। আম’রা তো ওয়ার্ল্ডের বাইরে না। সেক্ষেত্রে আমাদেরও হয়তো কিছু কিছু ক্ষেত্রে আরও রেশনাল বিহেভ করতে হবে সেজন্য আম’রা মিডিয়াকে অনুরোধ করব এটাই একটু পজিটিভ ওয়েতে প্রচার করার জন্য। আম’রা সবাই যেন একটু সাশ্রয়ী থাকি বা রেশনাল থাকি।

 

Back to top button