রাজনীতি

স্ত্রী’র কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী

অন্তিম ইচ্ছা অনুযায়ী দেশবরেণ্য সাংবাদিক, কলামিস্ট, লেখক ও সাহিত্যিক আবদুল গাফফার চৌধুরীকে ঢাকার মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে স্ত্রী’র পাশেই সমাহিত করা হবে।

যু’ক্তরাজ্যে বাংলাদেশ হাইকমিশনের মিনিস্টার (প্রেস) আশিকুন্নবী চৌধুরী এ তথ্য জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাতে বাংলাদেশ হাইকমিশনের এক সংবাদ বি’জ্ঞ’প্তিতে বলা হয়, গাফ্ফার চৌধুরীর জানাজা আজ শুক্রবার জুমা’র নামাজের পর পূর্ব লন্ডনের ব্রিকলেন ম’স’জিদে অনুষ্ঠিত হবে। সংশ্লিষ্ট সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে তার ম’রদেহ বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসে যত দ্রুত সম্ভব ঢাকায় পাঠানোর জন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

যু’ক্তরাজ্যে নিযু’ক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম বলেন, আম’রা বরেণ্য একজন মানুষকে হারালাম। আম’রা যত দ্রুত সম্ভব শুক্রবার বাদজুমা উনার জানাজা শেষ করার চেষ্টা করছি।

আবদুল গাফফার চৌধুরী বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা ৪০ মিনিটে লন্ডনে চিকিৎসাধীন মা’রা যান।

গাফফার চৌধুরী স্বাধীনতাযু’দ্ধে মুজিবনগর সরকারে মাধ্যমে নিবন্ধিত স্বাধীন বাংলার প্রথম পত্রিকা সা’প্তাহিক জয় বাংলার প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক ছিলেন। তিনি ১৯৩৪ সালের ১২ ডিসেম্বর বরিশালের গ্রাম উলানিয়ার চৌধুরী বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি যু’ক্তরাজ্যের লন্ডনের মিডলসেক্সের এজোয়ারের মেথুইন রোডের ৫৬ নম্বর বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন।

ছাত্রজীবনেই লেখালেখিতে হাতেখড়ি গাফফার চৌধুরীর। ১৯৪৯ সালে মোহাম্ম’দ নাসিরউদ্দীন সম্পাদিত মাসিক সওগাত পত্রিকায় তার গল্প প্রকাশিত হয়। ১৯৫২ সালে সাময়িকপত্রে প্রকাশিত হয় প্রথম উপন্যাস ‘চন্দ্রদ্বীপের উপাখ্যান’।

১৯৫৬ সালে যোগ দেন তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া সম্পাদিত দৈনিক ইত্তেফাকে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযু’দ্ধ শুরু হলে আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী কলমযোদ্ধার ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। জয় বাংলা পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

Back to top button