জাতীয়

যুবকের চোখ তোলার পর গলা কে’টে

বরিশালের মুলাদীতে মনির হাওলাদার (৩২) নামে এক যুবককে চোখ তোলার পর গলা কে’টে হ’ত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার রাতে উপজে’লা কাজিরচর ইউনিয়নের চরকমিশনার গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ওই গ্রামের একটি পুকুরের পাশ থেকে মনির হাওলাদারের লা’শ উ’দ্ধা’র করা হয়।নি’হ’ত মনির হাওলাদার চরকমিশনার গ্রামের ছালাম হাওলাদারের ছে’লে।

ঘটনার সঙ্গে জ’ড়ি’ত থাকার স’ন্দেহে দুইজনকে আ’ট’ক করেছে মুলাদী থা’না পু’লিশ। তারা হলেন- চরকমিশনার গ্রামের আমির মৃধার ছে’লে ও কা’মাল সরদারের সহযোগী জামাল মৃধা এবং আব্বাস ডাক্তারের ছে’লে আলম হোসেন।

নি’হ’ত মনিরের ছোটভাই পাভেল হোসেন জানান, চরকমিশনার এলাকার জনৈক ব্যবসায়ীর গরুর খামা’রে দীর্ঘদিন কাজ করেছেন তার বড়ভাই মনির হোসেন। কাজের সুবাদে বেশ কয়েক মাসের বেতন বকেয়া পড়েছিল। বেতন না দেওয়ায় এক সপ্তাহ আগে মনির হোসেন কাজ ছেড়ে দেন। এরপর বকেয়া টাকা পরিশোধ না করে ওই ব্যবসায়ী আমা’র ভাই মনির হাওলাদারকে ঘুরাচ্ছিলেন। সোমবার বকেয়া টাকা চাইলে ব্যবসায়ীর লোকজন আমা’র ভাইকে পু’লিশ দিয়ে ধরিয়ে জে’লে দেওয়া এবং বিভিন্ন ধরনের হু’মকি দেয়।

তিনি বলেন, সোমবার রাত ৯টার দিকে মনির হাওলাদার আমা’র কাছ থেকে ৫০ টাকা নিয়ে মীরগঞ্জ ফেরিঘাটে যাওয়ার কথা বলে ঘর থেকে বের হন। রাতে ঘরে না ফেরায় বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও সন্ধান পাইনি। মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় লোকজন আবুল সরদারের পুকুরের পশ্চিম পাশে মনিরের লা’শ দেখতে পেয়ে আমাদের সংবাদ দেন। সেখানে ভাইয়ের গলাকা’টা লা’শ দেখতে পাই। আমা’র ভাইয়ের বাম চোখটি উৎপাটন করা হয়েছে। বুঝা যাচ্ছে তাকে অনেক ক’ষ্ট দিয়ে মে’রে ফেলা হয়েছে। আমাদের ধারণা সোমবার রাতের কোনো এক সময় আমা’র বড়ভাই মনিরকে হ’ত্যা করা হয়েছে।

মুলাদী থা’নার ওসি এসএম মাকসুদুর রহমান জানান, সোমবার রাত থেকে মনির হোসেন নি’খোঁ’জ ছিলেন। মঙ্গলবার তার লা’শ উ’দ্ধা’র করা হয়। সব কিছু দেখে এটাকে পরিক’ল্পি’ত হ’ত্যাকা’ণ্ড বলেই মনে হচ্ছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে এলাকার জামাল মৃধা ও মীরগঞ্জ ফেরিঘাটের স্পিডবোটচালক আলম হোসেনকে আ’ট’ক করা হয়েছে। পাশাপাশি মা’ম’লা দায়েরের প্রস্তুতি এবং ময়নাত’দ’ন্তের জন্য মৃ’তদেহ বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ম’র্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

 

Back to top button