জাতীয়

প্রতি মাসে বিদ্যালয়ের বিদ্যুৎবিল দিতে হবে শিক্ষার্থীদের!

এবার পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজে’লার রাঙ্গাবালী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এক নতুন নিয়ম চালু করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। ওই বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য প্রতি শিক্ষার্থীকে মাসে ১০ টাকা হারে বিল পরিশোধ করতে হবে। জানা গেছে, বর্তমানে স্কুলটিতে ৭৮০ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। এ হিসাব অনুযায়ী শিক্ষার্থীপ্রতি ১০ টাকা হারে আদায় করলে প্রতি মাসে বিদ্যুৎবিল বাবদ ৭ হাজার ৮০০ টাকা আদায় হবে। আর বছরে ৯৩ হাজার ৬০০ টাকা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অ’তিরিক্ত আদায় করবে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বর্তমানে বিদ্যালয়ে প্রতি মাসে এক থেকে দেড় হাজার টাকা বিদ্যুৎবিল আসে। সে হিসাবে বছরে বিদ্যুৎবিল আসে ১২ থেকে ১৮ হাজার টাকা। শিক্ষার্থী ও অ’ভিভাবকরা জানান, বিদ্যুৎবিলের জন্য শিক্ষার্থীপ্রতি মাসিক ১০ টাকা ফি ধার্য করেছেন শিক্ষকরা। এরইমধ্যে টাকা উত্তোলন শুরু হয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক শিক্ষার্থী বলেন, আম’রা বেতন দিই, সেশন ফি দিই। এরপরও প্রতি মাসে বিদ্যুৎ বিল বাবদ ফি চালু করাটা অযৌক্তিক।

এ বিষয়ে রাঙ্গাবালী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাসির উদ্দিন নেছার বলেন, তিন ভবনে প্রতি মাসে এক থেকে দেড় হাজার টাকা বিদ্যুৎ বিল আসে। ৬০টি ফ্যান চলে। বিলটা দেবে কে? বিলটা তো কাউকে না কাউকে পরিশোধ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের সরকারি কোনো বরাদ্দ নেই। আমা’র কাছে মনে হয়েছে, যেহেতু আমাদের খরচ বাড়ছে, আমাদের তো কিছু ইনকা’মও বাড়ানো দরকার। বিদ্যুতের লাইন চালু করতে আমাদের প্রায় এক লাখ ১৮ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এই টাকা’টা তো আমাদের ম্যানেজ করতে হবে। এ বছরের জানুয়ারি থেকে বিদ্যুৎ বিল বাবদ টাকা নেওয়া চালু হয়েছে। আম’রা শিক্ষকরা মিলে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাঙ্গাবালী উপজে’লা নির্বাহী কর্মক’র্তা (ইউএনও) ও বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মাসফাকুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমা’র জানা নেই। তবে এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে দেখছি। এদিকে পটুয়াখালী জে’লা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মক’র্তা (ভা’রপ্রাপ্ত) মুহা. মুজিবুর রহমান বলন, ম্যানেজিং কমিটি এ ধরনের সিদ্ধান্ত এবং রেজুলেশন নিয়েছে কি না জানা নেই। বিদ্যুৎ বিল নেওয়ার বিষয়ে ওইভাবে সুনির্দিষ্ট কোনো নিয়ম নেই। আমি খোঁজ নিয়ে বিষয়টি দেখবো।

Back to top button