জাতীয়

আত্মগো’প’নেই রয়েছেন বিদ্রোহীরা, প্রত্যাহার করেননি মনোনয়ন

ভোলার লালমোহনে ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা আত্মগো’প’নেই রয়েছেন। বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনেও তারা মনোনয়ন প্রত্যাহার করেননি। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে দল থেকে বলা হলে দুই ইউনিয়নের চার বিদ্রোহী প্রার্থী আত্মগো’প’নে চলে যান।

তবে কালমা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আকতার হোসেন হাওলাদারের ভাই ইকবাল হোসেন ও রমাগঞ্জ ইউনিয়নে সফিউল আলম প্রিন্স নামে একজন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। তবুও দুই ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীসহ চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন ৫ জন করে ১০ জন প্রার্থী।এর আগে কালমা ও রমাগঞ্জ ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের জয় নিশ্চিত করতে দলীয়ভাবে প্রার্থীদের নিয়ে বৈঠক ডাকলেও উপস্থিত হননি বিদ্রোহীরা।

উপজে’লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফখরুল আলম হাওলাদার জানান, উপজে’লা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য নূরুন্নবী চৌধুরী শাওনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে বিদ্রোহী প্রার্থীদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করতে বলায় আত্মগো’প’নে চলে যান তারা। বৃহস্পতিবার শেষ দিনে মনোনয়ন প্রত্যাহার না করায় তাদের বি’রু’দ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কালমা ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজে’লা জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি মো. জাকির হোসেন পঞ্চায়েত এবং রমাগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো. জামাল উদ্দিন, উপজে’লা আওয়ামী লীগের সহ-দপ্তর সম্পাদক আনোয়ার রাব্বী সিকদার ও ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক মোসলেউদ্দিন লিটন বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মাঠে থেকে যাওয়ায় তাদের প্রতীক বরাদ্দ হচ্ছে। শুক্রবার প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ হবে। আগামী ১৫ জুন লালমোহনের কালমা ও রমাগঞ্জ ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

লালমোহন উপজে’লা নির্বাচন কর্মক’র্তা ও রিটার্নিং অফিসার আমির খসরু গাজী জানান, বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে ২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী এবং ৭ জন সাধারণ সদস্য প্রার্থী মনোনয়ন ফরম প্রত্যাহার করেছেন। এখন মাঠে ১০ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী, ২২ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য প্রার্থী ও ৮৪ জন সাধারণ সদস্য প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

Back to top button