জাতীয়

হাসপাতা’লে ভর্তি তুরস্কের সেই নাগরিকের মাঙ্কিপক্স হয়নি

মাঙ্কিপক্স স’ন্দেহে ঢাকায় আসা তুরস্কের যে নাগরিককে হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয়েছিল, তিনি এ রোগে আ’ক্রা’ন্ত হননি। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর শুক্রবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক তাহমিনা শিরীন।

মঙ্গলবার তুরস্ক থেকে আসা ওই ব্যক্তিকে হ’জরত শাহ’জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকেই মাঙ্কিপক্স স’ন্দেহে রাজধানীর মহাখালীর সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতা’লে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা হয়। তবে ওই দিনই স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, তুরস্কের নাগরিকের উপসর্গ মাঙ্কিপক্সের নয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অ’তিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) আহমেদুল কবির বলেন, তার মাঙ্কিপক্সের কোনো উপসর্গ নেই। তার শরীরে যে ফুসকুড়ি, তা দীর্ঘদিনের চর্ম’রোগের কারণে।

তার পরও তার পরীক্ষা চলে। আজ আইইডিসিআরের পরিচালক তাহমিনা শিরীন বলেন, ওই ব্যক্তির মাঙ্কিপক্স হয়নি। তাকে পরীক্ষার পর হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, মাঙ্কিপক্সের উপসর্গ অনেকটা গুটিবসন্তের মতো, তবে তা মৃদু। শুরুতে জ্বর, মা’থাব্যথা, শরীরব্যথা, ক্লান্তি ভাব, অবসাদ ইত্যাদি দেখা দেয়। ফুলে যেতে পারে লসিকা গ্রন্থি। এক থেকে তিন দিনের মধ্যে সারা গায়ে ফুসকুড়ি ওঠে। মুখে শুরু হয়ে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে এই ফুসকুড়ি।

Back to top button