জাতীয়

বাজারে অস্থিরতা থাকবে না, আশা অর্থমন্ত্রীর

বিশ্ব পরিস্থিতির কারণে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার অস্থির হলেও তা থাকবে না বলে আশা ব্যক্ত করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মু’স্তফা কা’মাল।শুক্রবার (১০ জুন) দুপুরে ওসমানী মিলনায়তনে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, আম’রা ডিমান্ড বলতে বুঝিয়েছি, যে পরিমাণ ডিমান্ড দেখালে বাজেট বাস্তবায়ন হয়। আম’রা ভালো করে ফেলতে পারলে বাস্তবায়ন করা হয়। বাজারে যে অস্থিরতা আছে সারা’বি’শ্বে কোথায় দাম বাড়ছে আপনারা জানেন। গত এক বছরে ব্যবহৃত পণ্যের দাম ৩০ শতাংশ বেড়েছে। এটির কিছুটা প্রভাব আমাদের এখানে পড়বেই। দেশীয় প্রোডাক্ট আম’রা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি। সেটা আম’রা নিয়নন্ত্রণে রাখছি। বাইরে থেকে আসা পণ্য নিয়ন্ত্রণে রাখা তো সম্ভব নয়। তবে বাজারে অস্থিরতা থাকবে না। সেটি নিয়ন্ত্রণে সরকার চেষ্টা করছে।

অর্থপাচার প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, পি কে হালদার ভালো অবস্থায় নেই। ভা’রত সরকার বলেছে টাকা ফেরত দেবে। এবং তাকে দেশে পাঠাবে। কানাডা সরকারও বলেছে বিভিন্নভাবে সেখানে অনেকে বাড়ি কিনেছেঅ সেটি সংশ্লিষ্ট দেশকে ফেরত দেওয়া হবে। অনেকে না জেনেই টাকা নিয়ে গেছে। সেগুলো ফিরিয়ে অর্থনীতির মূলধারায় আনতে কাজটি করা হচ্ছে।

এবারের বাজেট কেমন হয়েছে জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, এটা প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সহায়তার বাজেট। গরীব হওয়া কতো ক’ষ্টে’র সেটা আমি হাড়ে হাগে জানি। তাদের সামনে রেখেই আম’রা বাজেট তৈরি করি। যখনই কোনো চ্যালেঞ্জ আসে সেটা কিন্তু সুযোগও নিয়ে আসে। সারা’বি’শ্ব করোনায় যে ক’ষ্ট করেছে সেটি বাংলাদেশ করেনি। আম’রা দেশের মানুষকে ভ’য়-ভীতিতে রাখিনি। ক’ষ্ট আমাদের থাকবে না। আমাদের রপ্তানি ৫০ বিলিয়ন ডলার হবে সেটি কি ভাবতে পেরেছেন?

এসময় কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, মৎস্য ও প্রা’ণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনিসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কর্মক’র্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

Back to top button