জাতীয়

শিকলে বেঁধে ছাত্রকে নি’র্যা’তন, অধ্যক্ষ আ’ট’ক

পায়ে লোহার শিকল বাঁ’ধা অবস্থায় নির্যাতিত শি’শু শিক্ষার্থী রাতের আঁধারে কৌশলে পালাতে গিয়ে টহল পু’লিশের হাতে পড়ে। পু’লিশ শি’শুটিকে উ’দ্ধা’র করে রাতেই থা’নায় নিয়ে যায়। ১০ বছর বয়সী ওই শি’শু শিক্ষার্থীর নাম জাহিদুল হাসান নাঈম।শনিবার রাতে উপজে’লার পূর্ব চন্দ্রপুর এলাকা থেকে শি’শুটি উ’দ্ধা’র করা হয়। শি’শুটি নোয়াখালীর সেনবাগ উপজে’লার মোহাম্ম’দপুর গ্রামের পাটোয়ারী বাড়ির আব্দুল্লাহ আল মামুনের ছে’লে। সে মাদ্রাসার নাজরা শ্রেণির শিক্ষার্থী।

এ ঘটনায় রোববার দাগনভূঞা থা’না পু’লিশ ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ফখরুল ই’স’লা’মকে (৩২) আ’ট’ক করেছে। তিনি নোয়াখালীর সেনবাগ উপজে’লার বড় চাঁড়িগাও গ্রামের বাসিন্দা।শি’শুটি ফেনীর দাগনভূঞা উপজে’লার পূর্বচন্দ্রপুর ইউনিয়নের দেউলিয়া নুরানীয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসার নাজরা শ্রেণির আবাসিক ছাত্র ছিল।

ওই মাদ্রাসা শিক্ষার্থীকে লোহার শিকল দিয়ে বেঁধে রাখাসহ নানা ধরনের নি’র্যা’তন করা হতো। নি’র্যা’তন সইতে না পেরে একপর্যায়ে ওই শি’শুটি গত শনিবার রাতে মাদ্রাসা থেকে কৌশলে পালিয়ে যায়।রাত ৩টার দিকে দাগনভূঞা থা’নার টহল পু’লিশের গাড়ির সামনে পড়ে। পু’লিশ পায়ে শিকল পরা শি’শুটিকে দেখতে পেয়ে উ’দ্ধা’র করে থা’নায় নিয়ে যায়।

রোববার সকালে শি’শু শিক্ষার্থীকে নি’র্যা’তনের ঘটনায় পু’লিশ অ’ভিযু’ক্ত মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ফখরুল ই’স’লা’মকে মাদ্রাসা থেকে আ’ট’ক করে।পু’লিশ ও শি’শু শিক্ষার্থীর বাবা আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, তার ১০ বছর বয়সী ছে’লে জাহিদুল হাসানকে চলতি বছরের শুরুতে পূর্ব চন্দ্রপুর ইউনিয়নের ডেউলিয়া নুরানীয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসার নাজেরা শ্রেণিতে ভর্তি করানো হয়। কিন্তু মাদ্রাসাটিতে প্রায় শি’শু জাহিদুলসহ অনেক শিক্ষার্থীকে নানা ধরনের নি’র্যা’তন করা হতো বলে অ’ভিযোগ শোনা যেত।

শনিবার শি’শুটির বাবা তার ছে’লেকে দেখতে মাদ্রাসায় যায়। শি’শু জাহিদুল তখন মাদ্রাসায় নি’র্যা’তনের বিষয়টি তার বাবাকে জানায় এবং মাদ্রাসায় আর পড়বে না বলেও জানায়। তারপরও শি’শুর বাবা শি’শুটিকে বুঝিয়ে মাদ্রাসায় রেখে আসেন।ওই শিক্ষার্থীর বাবা মাদ্রাসা থেকে চলে যাওয়ার পর শি’শুর অ’ভিযোগ বিষয়টি অধ্যক্ষ জানতে পারেন। এতে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে শি’শুটিকে লোহার শিকল দিয়ে বেঁধে মাদ্রাসার একটি কক্ষে আ’ট’কে রাখেন ও লা’ঠি দিয়ে নি’র্ম’মভাবে পি’টি’য়ে জ’খ’ম করে।

ওই রাত ৩টার দিকে শি’শুটি বাথরুমে যাওয়ার কথা বলে কৌশলে মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে রাস্তায় চলে যায়। এ সময় দাগনভূঞা থা’নার পু’লিশের একটি টহল দল ওই স্থান দিয়ে যাচ্ছিল। পু’লিশ এত রাতে রাস্তায় শিকল পরা শি’শুটিকে পেয়ে তাকে উ’দ্ধা’র করে থা’নায় নিয়ে যায়। পু’লিশ বিস্তারিত জেনে শি’শুর বাবাকে খবর পাঠায়।

দাগনভূঞা থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) মো. হাসান ই’মাম জানান, ঘটনায় সকালেই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ফখরুল ই’স’লা’মকে আ’ট’ক করে থা’নায় নিয়ে আসা হয়েছে। ঘটনায় শি’শুর পরিবার বা অন্য কেউ অ’ভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Back to top button