রাজনীতি

পদ্মা সেতু উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যাওয়া নিয়ে যা বললেন মির্জা ফখরুল

বিএনপির শাসন আমলে বেগম খালেদা জিয়া পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন বলে দাবি করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ই’স’লা’ম আলমগীর। তিনি বলেন, পদ্মা সেতু নিয়ে একটু পড়াশুনা করলে জানতে পারবেন। পদ্মা সেতু নির্মাণের প্রাথমিক চিন্তা-ভাবনা শুরু হয় বেগম খালেদা জিয়ার আমলে। ১৯৯৪-৯৫ সালে সেতুটির ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। এ সেতু নির্মাণের বিষয় নিয়ে সেই সময় বিশ্বব্যাংক ও জা’পানের সঙ্গে আলোচনা হয়। আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে সেতুটির নির্মাণ ব্যয় স্থির করা হয় ৮ হাজার কোটি টাকা।

মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় ঠাকুরগাঁও জে’লা বিএনপি কার্যালয়ে জে’লা জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের আয়োজনে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আপনারা যাবেন কিনা- সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, এ প্রশ্নের উত্তর ওবায়দুল কাদের সাহেবকে জিজ্ঞাসা করেন। তার নেত্রী আওয়ামী লীগের সভানেত্রী বলেছেন- খালেদা জিয়া যদি পদ্মা সেতুতে যায়, সেখান থেকে যদি তাকে টুস করে ফেলে দেয়া যায়- তাহলে ঠিক হয়। এখন আপনি তাকে হ’ত্যার হু’মকি দেবেন আর তিনি সেখানে হ’ত্যার হু’মকির মুখে যাবেন; এটা মনে করার কোনো কারণ নেই। যে সেতু থেকে বেগম জিয়াকে ফেলে দিয়ে হ’ত্যার হু’মকি দেয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সেই অনুষ্ঠানে যাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না।

এর আগে বিএনপি চেয়ারপার্সনের বর্তমান শা’রীরিক অবস্থা কেমন তার বিদেশে চিকিৎসা ও সরকারদলীয় মন্ত্রী বলছেন তার অ’সুস্থতা নিয়ে বিএনপি রাজনীতি করছেন- এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাংবাদিকের প্রশ্নে বির’ক্তি প্রকাশ করে মির্জা ফখরুল বলেন, এটা বাজে প্রশ্ন। এটা কোনো প্রশ্নই না। উনি কী বললেন না বললেন এটা কোনো অর্থ বহন করে না। আমা’র কাছে অর্থ বহন করে কুমিল্লার নির্বাচন।

তবে তিনি অ’ভিযোগ করে বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সরকার বিদেশে যেতে দেয় না।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- ঠাকুরগাঁও জে’লা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ফখরুলের ছোটভাই মির্জা ফয়সাল আমিন, জে’লা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক মামুন উর রশিদ, মহিলা দলের নেত্রী ফোরাতুন নেহার প্যারিস, সাবেক উপজে’লা চেয়ারম্যান সুলতানুল ফেরদৌস নূর চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা নুর করিম, শ্রমিক নেতা দানেশ আলী, আব্দুল জব্বারসহ বিএনপির বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা।

Back to top button