জাতীয়

চাই না গয়না, চাই না শাড়ি/ নৌকাতে ভোট না দিলে যাব চলে বাপের বাড়ি

স্বপ্নের পদ্মা সেতু নিয়ে কবিতা আবৃত্তি ও গান গেয়ে গতকাল মঙ্গলবার সংসদ অধিবেশন মাতিয়েছেন সরকারি দলের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর ও মমতাজ বেগম। মানিকগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জনপ্রিয় শিল্পী মমতাজ বেগম স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে গান ও আবৃত্তির মাধ্যমে মঙ্গলবার আবারও সংসদ অধিবেশন মাতিয়ে তুলেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পদ্মা সেতু নিয়ে তিনি একাধিক গান শোনান ও কবিতা আবৃত্তি করেন। এ সময় তিনি হাসি-ঠাট্টার ছলে জবাব দেন বিরোধী দল বিএনপি দলীয় সদস্যদের নানা সমালোচনারও।

শিল্পী মমতাজের পুরো বক্তব্যের সময় জুড়ে সদস্যদের মধ্যে হাসির রোল পড়ে যায়। সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সংসদ সদস্যরা টেবিল চাপড়ে তাকে উৎসাহিত করেন। তার বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে সহকর্মী এমপিদের অনুরোধে তিনি আরও একটি গান গেয়ে শোনান। শিল্পী মমতাজ তার বক্তব্যে বিএনপি দলীয় সদস্য হারুনুর রশীদের কোরান ও হাদিসের উদ্ধৃতি দেওয়ার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, আম’রাও কোরান-হাদিস পড়ি।

বেশ কয়েকটি বিখ্যাত হাদিস গ্রন্থের নাম উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি এবং আমা’র মা-বাবা হ’জ করেছেন। আবার বাবা একজন বাউল শিল্পী। তিনি গানও করেছেন। আম’রা ধ’র্মান্ধ নই, তবে ধ’র্মভীরু। এগুলো অন্তরে ধারণ করার বিষয়, প্রকাশ করার নয়। দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই লোক সংগীত শিল্পী শুরুতেই গেয়ে ওঠেন, আমা’র নেত্রী শেখ হাসিনা যার তুলনা নাই/এমন একজন নেত্রীর জন্য আমি দোয়া চাই।

পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার অ’ভিজ্ঞতা বর্ণনা করে তিনি বলেন, এখন গ্রামের না’রী ভোটাররা শাড়ি-গয়না চায় না। তারা এখন স্বামীর কাছে নৌকায় ভোট চায়। এ সময় তিনি আরও একটি গান গেয়ে ওঠেন, ‘চাই না গয়না, চাই না শাড়ি/ নৌকাতে ভোট না দিলে যাব চলে বাপের বাড়ি।’ মমতাজ বলেন, তিনি সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার সিডনি ও মেলবোর্নে বঙ্গবন্ধু পরিষদের আয়োজনে একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে গিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, সেখানে আমা’র ‘পাঙ্খা পাঙ্খা’ গানের সাথে একটা মে’য়ে খুব সুন্দর নাচছিল। অনুষ্ঠান শেষে মে’য়েটি তার সঙ্গে সেলফি তুলতে আসে। মে’য়েটিকে জিজ্ঞাসা করি, তুমি কি নাচ শিখেছ? জবাবে মে’য়েটি জানায়, তার বাবাও একজন সংসদ সদস্য। তার বাবার নাম হারুনুর রশীদ সাহেব (বিএনপির সংসদ সদস্য)।

এ সময় সংসদে হাসির রোল পড়ে যায়। সংসদ নেতা শেখ হাসিনা এবং বিএনপির হারুনুর রশীদকেও এ সময় হাসতে দেখা যায়। বক্তব্যের শেষের দিকে বিরোধী দলের দিক থেকে মমতাজকে আরও একটি গান গাইবার অনুরোধ আসে। মমতাজ তখন বলেন, আরে আপনি শুনতে চেয়েছেন, গাইব না? এরপর তিনি গেয়ে ওঠেন, সবার আগে চিন্তা করল শেখ হাসিনার সরকার/ যাতায়াতের উন্নয়নে পদ্মা সেতু দরকার।

এর আগে বাজেট আলোচনায় অংশ নিয়ে নীলফামা’রী-২ আসনের সরকার দলীয় সদস্য ও বিশিষ্ট অ’ভিনেতা আসাদুজ্জামান নূর পদ্মা সেতু নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে সাবেক সচিব কবি কা’মাল চৌধুরীর ‘পদ্মা সেতু’ কবিতা থেকে কিছু অংশ আবৃত্তি করেন। তিনি আবৃত্তি করেন, ‘আমাদের এই গল্প শেখ হাসিনার হাতে এখন/ ইতিহাস হয়ে গেছে/ বহু বছর পরে আরেকটি বিজয় পার হয়ে যাচ্ছে/ খরস্রোতা পদ্মা/ নৌকা, ভাটিয়ালি, ফেরিঘাট, জাহাজের ভেঁপু ছুঁয়ে ছুঁয়ে স্বপ্নের দিকে হাত বাড়িয়ে দিয়েছে দুই তীরের বন্ধন।’

Back to top button