জাতীয়

সারা দেশে বজ্রবৃষ্টির পূর্বাভাস

দেশের সব বিভাগে বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভা’রি থেকে ভা’রি বর্ষণ হতে পারে।

বুধবার (২৯ জুন) সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এ সময় দিনের তাপমাত্রা প্রায় অ’পরিবর্তিত থাকতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে বলেও জানানো হয়েছে। এ ছাড়া আগামী ২ দিন বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বাড়তে পারে বলেও জানায় আবহাওয়া অফিস।

সিলেটে বুধবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সর্বোচ্চ ১১১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এ সময় নীলফামা’রীর ডিমলায় ১০৯, পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় ৮৬, দিনাজপুরে ৬৩, ফেনীতে ৪১, চট্টগ্রামের সন্দ্বীপে ৩২, মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল, নীলফামা’রীর সৈয়দপুর ও নোয়াখালীর মাইজীকোর্টে ৩১, কক্সবাজারে ২৬, কুমিল্লায় ২৪, ফরিপুরে ২৩, কুড়িগ্রামের রাজারহাটে ২১, রংপুরে ২০, পাবনার ঈশ্বরদীতে ১৯, ঢাকায় ১৬, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড ও নোয়াখালীর হাতিয়ায় ১৫, কক্সবাজারের টেকনাফে ১৪ এবং পটুয়াখালীর খেপুপাড়ায় ১০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। এ ছাড়া টাঙ্গাইল, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, কি’শোরগঞ্জের নিকলি, ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, রাঙামাটি, চাঁদপুর, বগুড়া, সাতক্ষীরা, যশোর, চুয়াডাঙ্গা ও বরিশালেও বৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

বুধবার ডিমলায় সর্বনিম্ন ২৪ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। এদিন ঈশ্বরদীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ সময় ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩২ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

পূর্বাভাসে আরও বলা হয়, মৌসুমি বায়ুর অক্ষ বিহার, পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর বাড়তি অংশ উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

আজ ঢাকায় দক্ষিণ অথবা দক্ষিণপূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ১০ থেকে ১৫ কিলোমিটার বেগে বাতাস প্রবাহিত হচ্ছে, যা অস্থায়ীভাবে ৩০ থেকে ৪০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়তে পারে। সন্ধ্যায় ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৮৪ শতাংশ।ঢাকায় বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) সূর্যোদয় ভোর ৫টা ১৫ মিনিটে এবং সূর্যাস্ত সন্ধ্যা ৬টা ৫০ মিনিটে।

Back to top button