জাতীয়

যু’ক্তরাষ্ট্রে স্কুল ও সরকারি ভবনে জামাতে নামাজ আদায়ের অনুমোদন

মা’র্কিন যু’ক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট ‘স্কুল ও সরকারি ভবনে মু’সলমানদের জামাতে নামাজ আদায়ের ওপর নিষেধাজ্ঞাকে’ সংবিধানের প্রথম সংশোধনীর সাথে সাংঘর্ষিক বলে ঘোষণা করেছে। সুপ্রিম কোর্টের এই ঘোষণা সরকারি কর্মক’র্তা-কর্মচারীদের ধ’র্মীয় আকিদা-বিশ্বা’সের ক্ষেত্রে সম্মান দানের প্রতি উদ্বুদ্ধ করবে।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা যায়, দেশটির সুপ্রিম কোর্টের বিচারকগণ ‘কর্মস্থলে সরকারি কর্মচারীদের ধ’র্মীয় বিশ্বা’স প্রকাশ’ বিষয়ে সংবিধান সংশোধনের ব্যাখ্যায় ওই মন্তব্য করেছেন। আ’মেরিকার কেন্দ্রীয় বিচারকবৃন্দ স্কুল ও সরকারি ভবনে মু’সলিম কর্মচারীদের জামাতবন্ধ হয়ে নামাজ আদায়ের অনুমতি দানকালে বলেছেন, ‘জামাতে নামাজ আদায়ের ওপর নিষেধাজ্ঞাটি আইনের প্রথম সংশোধনবিরোধী। অথচ আইনের প্রথম সংশোধনের মাধ্যমেই কর্মচারীদের ধ’র্মীয় বিশ্বা’স সংরক্ষণের দায়িত্ব গ্রহণ করা হয়েছে।’

সুপ্রিম কোর্টের বিচারিক বেঞ্চের ৯ জন বিচারপতির ৬ জনই মু’সলমানদের জামাতে নামাজ আদায়ের অনুমতির পক্ষে মত দিয়েছেন। বিপরীতে ৩ জন বিচারক অনুমতির বিপক্ষে।

ওয়াশিংটন হাই স্কুলের জোসেফ কেনেডি নামের একজন সাবেক ফুটবল কোচ ম্যাচের পর ৫০ গজ লাইনে মু’সলিম ছাত্রদের জামাতে নামাজ আদায়ের অনুমতি দিয়েছিলেন। এই কারণে তিনি চাকরি থেকে বরখাস্ত হন। তখন ‘সরকারি প্রতিষ্ঠানে মু’সলমানদের জামাতে নামাজ আদায়ের’ ইস্যুটি আবার সামনে আসে।

জোসেফ কেনেডি নিজের চাকরিচ্যুতির বিপক্ষে আ’দা’লতে মা’ম’লা দায়ের করেন। মা’ম’লায় তিনি উল্লেখ করেন, ধ’র্মীয় স্বাধীনতার দৃষ্টিকোণেই তিনি ফুটবল মাঠে স্কুলের মু’সলিম ছাত্রদের জামাতে নামাজ আদায়ের অনুমতি দিয়েছিলেন। এই অনুমতি কখনোই আইনবিরোধী নয়।

আ’দা’লত নিজেদের রায়ে লিখেছেন, দেশের সংবিধানের প্রথম সংশোধন সরকারকে ‘ধ’র্মীয় বিধানের প্রতি সম্মান দানের বি’রু’দ্ধে যেকোনো আইন তৈরি থেকে বিরত রাখে।’ আ’দা’লতের এই রায়ের মাধ্যমে সরকারের ‘বিনা কারণে এক ধ’র্মের ওপর অন্য ধ’র্মের প্রধান্য দানের’ পদক্ষেপের ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ হলো।

বিচারপতি নেল গোর্সেস লিখেছেন, আইন আমাদেরকে পরস্পরের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের দিকে উদ্বুদ্ধ করে, পরস্পরের অধিকার লঙ্ঘনকে নয়।

Back to top button