জাতীয়

স্বামী-সন্তানসহ অন্তঃসত্ত্বাকে চাপা দেওয়া সেই ট্রাকচালক গ্রে’প্তা’র

ময়মনসিংহের ত্রিশালে ট্রাকের চাপায় অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী’, স্বামী ও সন্তান নি’হ’ত ও আলৌকিকভাবে গর্ভের শি’শু ভূমিষ্ঠ হওয়ার ঘটনায় ঘা’ত’ক ট্রাকটির চালক রাজু আহমেদ শিপনকে গ্রে’প্তা’র করেছে রেব।

ঢাকার সাভা’র এলাকা থেকে সোমবার রাতে তাকে গ্রে’প্তা’র করা হয় বলে রে’বের মুখপাত্র খন্দকার আল মঈন জানিয়েছেন। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর কারওয়ান বাজার রে’ব মিডিয়া সেন্টারে এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানান তিনি।

গত শনিবার ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশাল কোর্ট বিল্ডিং এলাকায় ট্রাকচাপায় প্রা’ণ হারান উপজে’লার রায়মনি এলাকার ৪২ বছরের জাহাঙ্গীর আলম, তার ৩২ বছর বয়সী স্ত্রী’ রত্না বেগম ও তাদের ৬ বছর বয়সী মে’য়ে সানজিদা আক্তার।

রে’ব জানায়, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা দ্রুতগতির ট্রাকটি ময়মনসিংহের দিকে আসছিল। বেলা সোয়া ৩টার দিকে ত্রিশালের কোর্ট বিল্ডিং এলাকা পর্যন্ত আসতেই সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ওই দম্পতিসহ তাদের কন্যাশি’শুকে চাপা দেয় ট্রাকটি।

এতে ঘটনাস্থলেই স্বামী নি’হ’ত হন। আর মৃ’ত্যু য’ন্ত্র’ণায় ছটফট করতে থাকা অন্তঃসত্ত্বা না’রীর পেট চিড়ে বেরিয়ে আসে তার গর্ভে থাকা কন্যাশি’শু।

এ সময় স্থানীয়রা নি’হ’ত দম্পতির আ’হত সন্তান সানজিদা ও সদ্যোজাত কন্যাকে উ’দ্ধা’র করে দ্রুত উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। হাসপাতা’লে পৌঁছার আগেই সানজিদারও মৃ’ত্যু হয়। সদ্যোজাত শি’শুটির ডান হাতের দুটি হাড় ভে’ঙে গেলেও সে বেঁচে আছে। ময়মনসিংহ নগরীর চরপাড়া এলাকার লাবীব নামের একটি বেসরকারি হাসপাতা’লে শি’শুটি চিকিৎসাধীন।

এ দু’র্ঘ’ট’নায় নি’হ’ত জাহাঙ্গীর আলমের বাবা বাদী হয়ে ময়মনসিংহের ত্রিশাল থা’নায় সড়ক পরিবহন আইনের ৯৮/১০৫ ধারায় একটি মা’ম’লা দায়ের করেন।

রে’ব সদর দপ্তর গোয়েন্দা শাখা ও রে’ব-১৪ এর অ’ভিযানে সোমবার রাতে ঢাকার সাভা’র এলাকা থেকে দু’র্ঘ’ট’নায় জ’ড়ি’ত ঘা’ত’ক ট্রাক চালক রাজু আহমেদ সিপনকে (৪২) গ্রে’প্তা’র করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রে’প্তা’রকৃত ট্রাকচালক নি’হ’তদেরকে গাড়ি চাপা দেওয়ার সাথে তার সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে তথ্য প্রদান করেছে বলে রে’ব জানিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে খন্দকার আল মঈন বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, গ্রে’প্তা’রকৃত রাজু গত ১১ জুলাই থেকে একটানা মালামাল পরিবহন করে আসছিল। এর মধ্যে সে একবার রাজশাহী থেকে আম নিয়ে কি’শোরগঞ্জের তাড়াইলে মালামাল আনলোড করে পুনরায় রাজশাহী ফিরে আসে। পরবর্তীতে গত ১৫ জুলাই চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাট হতে গাড়ির মালিকের আম বোঝাই করে এবং পরবর্তীতে রাজশাহীর নৌহাটা থেকে আরেক দফায় আলু বোঝাই করে কি’শোরগঞ্জের তাড়াইলের এক ব্যবসায়ীর কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য রাত ১২টার সময় রওয়ানা করে।

পথিমধ্যে সে হালকা বিরতি নিয়ে দু’র্ঘ’ট’নার পূর্ব পর্যন্ত একটানা গাড়ি চালিয়ে আসছিল এবং কি’শোরগঞ্জ যাওয়ার পথে ময়মনসিংহের ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ডের কাছে পৌঁছালে রাস্তা পারাপারের জন্য দাঁড়িয়ে থাকা নি’হ’ত জাহাঙ্গীর আলম ও তার স্ত্রী’-সন্তানকে চাপা দেয়।

দু’র্ঘ’ট’নার পর উপস্থিত লোকজন ট্রাকটি থামায়। তখন সুযোগ বুঝে রাজু ঢাকাগামী একটি বাসে উঠে পড়ে। পরবর্তীতে বাস থেকে সে ময়মনসিংহ বাইপাসে নামে এবং সেখান থেকে একটি সিএনজি করে প্রথমে মুক্তাগাছা এবং পরে অ’পর একটি বাসে করে সে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা পৌঁছায়। সেখান থেকে সে তার পরিচিত বিভিন্ন ট্রাক চালকের ট্রাকে উঠে আত্মগো’প’নে থাকে। গতকাল এমন একটি ট্রাক সাভা’রে পৌঁছালে সেখান থেকে তাকে গ্রে’প্তা’র করা হয়।

Back to top button