জাতীয়

ক্ষমা চাইলেন সিইসি, দুষলেন গণমাধ্যমকে

নির্বাচনের মাঠে কেউ তলোয়ার নিয়ে এলে তাকে মোকাবিলায় ব’ন্দু’ক নিয়ে দাঁড়ানোর পরাম’র্শ নিয়ে নিজের অবস্থান জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। কথাটি কৌতুক ছিল বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

মঙ্গলবার ই’স’লা’মী ঐক্যজোটের সঙ্গে সংলাপের সমাপনী বক্তব্যে সিইসি ওই দলকে এসব কথা বলেন।তিনি বলেন, এ বক্তব্যের এজন্য আমি অনুতপ্ত। তবে এই বক্তব্য আমি মিন করে বলিনি। কৌতুক করে বলেছি। মিন করে বললে অ’স্ত্র সংগ্রহ করতে বলতাম।

এ সময় সিইসি গণমাধ্যমকেও দোষারোপ করেন। তিনি বলেন, গণমাধ্যম বুঝে, না বুঝে আর ওই বক্তব্য প্রচার করে তার ম’র্যাদা ক্ষুণ্ন করে দিয়েছে।

এদিন ই’স’লা’মী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আবুল হাসনাত আমিনীর নেতৃত্বে ঐক্যজোটের ১০ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল সংলাপে অংশ নেয়। সংলাপে বক্তব্যের সময় ‘তলোয়ার নিয়ে এলে আপনারা রাইফেল নিয়ে দাঁড়াবেন’—সিইসিকে এ ধরনের বিতর্কিত বক্তব্য না দেওয়ার পরাম’র্শ দেয় দলটি। পরে সমাপনী বক্তব্যে সিইসি এর জবাব দেন।

এনডিএম’র সঙ্গে সংলাপে এ ধরনের একটি বক্তব্য আসার বিষয়টি উল্লেখ করে সিইসি হাবিবুল আউয়াল বলেন, আমা’র এক ভাই বলেছেন একটা বি’ভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে। পরশু আমি বলেছিলাম যে ‘কেউ তলোয়ার নিয়ে এলে আপনারা রাইফেল নিয়ে দাঁড়াবেন’। এটা আপনাদের বুঝতে হবে একজন প্রধান নির্বাচন কমিশনার এই কথাটি কখনও মিন করে বলতে পারেন না। আমি হয়ত অল্প শিক্ষিত। অল্প শিক্ষিত হলেও তারা এ ধরনের কথা বলতে পারেন না।

গণমাধ্যমকে তথ্য সরববাহে নির্বাচন কমিশনের উদার-নৈতিক অবস্থানের কথা উল্লেখ করে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, আম’রা যতগুলো সম্মেলন বা আলোচনা করেছি কোনো রাখঢাক করিনি। বড় স্ক্রিনে আমা’র কথা ও ছবি প্রচার করা হয়। কিন্তু কেন মিডিয়া এটা করল? এটা কি বুঝে, নাকি না বুঝে। ওনাদের প্রতি আমা’র শ্রদ্ধা ‍খুবই আছে। কিন্তু এটা করে আমা’র ম’র্যাদাকে একেবাবেই ক্ষুণ্ন করে দেওয়া হয়েছে এবং আপনারাও এটা বিশ্বা’স করছেন।

তিনি বলেন, আমা’র বাবা বেঁচে থাকলে উনিও বিশ্বা’স করতেন না যে আমা’র ছে’লে এমন বাজে পরাম’র্শ দিল কেন? আমা’র মা বেঁচে থাকলেও বিশ্বা’স করতেন না। ওনারা সবাই পেপার পড়তেন। পেপার পড়ে তারা হয়তো বলতেন— ‘বাবু এত খা’রা’প পরাম’র্শ দিলে কেন’। আমি এজন্য এটাই বলব— কখনও কখনও আম’রা ভুল করে ফেলি। এর জন্য অনুতপ্ত। আমি হিউমা’র করতে গিয়েছিলাম। এটাই আসল। কিন্তু ওটাকে ওইভাবে প্রচার না করে কিছুটা বস্তুনিষ্ঠভাবে যদি বলা হতো— ‘উনি হিউমা’র করে বলেছেন’। তাহলে আমা’র হয়তো..। আমি এটা বলেছি এটা আপনারাও (ঐক্যজোট) বিশ্বা’স করেছেন। এজন্য বলেছেন আমি যেন এ ধরনের কথা না বলি। কিন্তু এটা আমি মিন করে বলিনি। যাক আমাকে ক্ষমা করবেন এজন্য। ক্ষমা করবেন।

Back to top button