জাতীয়

মঙ্গলবার ১৯১৫ মেগাওয়াট লোডশেডিং

দেশে বিদ্যুৎ ঘাটতি মেটাতে রাজধানীসহ দেশের সব জায়গায় পরিক’ল্পি’ত লোডশোডিং দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) এলাকাভিত্তিক পরিক’ল্পি’ত লোডশেডিংয়ের প্রথম’দিনেই ১৯১৫ মেগাওয়াট লোডশেডিং হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে রাষ্ট্রায়ত্ত বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের (বিপিডিবি) জনসংযোগ বিভাগের সদ্য পদোন্নতি পাওয়া পরিচালক শামীম হাসান জানান, আম’রা ১৪ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট চাহিদার বিপরীতে মোট ১২ হাজার ৪৪২ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছি। চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে ব্যবধান মেটাতে ১ হাজার ৯১৫ মেগাওয়াট লোডশেডিং করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

মঙ্গলবার সকাল থেকেই ঢাকা মেট্রোপলিটন ও এর পাশ্ববর্তী এলাকাগুলোতে বিদ্যুৎ বি’ভ্রাট শুরু হয়। বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলো দেশে জ্বালানি সংকট এড়াতে বিদ্যুতের রেশনিংয়ের আশ্রয় নেয়। একটি শীর্ষস্থানীয় কোম্পানির নির্বাহী শামসুল হক জানান, বনানীতে তাদের অফিস দুপুর ১২টা থেকে ১ ঘণ্টা বিদ্যুৎবিহীন ছিল। রাজধানীর শেওড়াপাড়া এলাকার এক বাসিন্দা জানান, মঙ্গলবার রাত ১১টা ও ভোর ৪টার সময় আমা’র এলাকায় লোডশেডিং হয়েছে। দুপুর ২টার দিকেও একবার লোডশেডিং হয়েছে।

এরআগে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ গত সোমবার (১৮ জুলাই) সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, মঙ্গলবার থেকে এক ঘণ্টা করে এলাকাভিত্তিক লোডশেডিং হবে। এক ঘণ্টায় যদি বিদ্যুতের ঘাটতি মোকাবিলা করা সম্ভব না হয় তাহলে দুই ঘণ্টা করে লোডশেডিং বাস্তবায়ন করা হবে। এ সময় প্রতিমন্ত্রী বিদ্যুৎ সশ্রয়ে আরো বেশি কিছু নির্দেশনা দেন।

 

Back to top button