জাতীয়

যে কারণে এক পরিবারের সবাইকে পুড়িয়ে মা’রার হু’মকি!

চড়া সুদে সাড়ে চার লাখ টাকা সংগ্রহ করে আত্মীয় স’ম্প’র্কের প্রতিবেশী এক দালালের মাধ্যমে জামাতাকে দুই বছরের চুক্তিতে সৌদি আরব পাঠিয়েছিলেন কি’শোরগঞ্জের কুলিয়ারচরের ঠেলাগাড়ি চালক আবদুল হামিদ। কিন্তু দুই বছরের চুক্তিতে পাঠানো হলেও মাত্র দুই মাস পরই ভিসার মেয়াদ চলে যাওয়ায় আত্মগো’প’ন করে মানবেতর জীবনযাপন করছেন জামাতা মোখলেছুর রহমান।

বারবার ধরনা দিয়েও এমন প্রতারণার প্রতিকার না পেয়ে থা’নায় অ’ভিযোগ করায় হা’ম’লা চালিয়ে মা’রধর করেছে দালান চক্রের লোকজন। একইসঙ্গে সবাইকে পুড়িয়ে মা’রার হু’মকি দিয়ে যায় দালাল চক্রের লোকজন। ত’দ’ন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বা’স দেয় পু’লিশ।

জানা গেছে, সংসারের অভাব ঘোচাতে ভাই স’ম্প’র্কের প্রতিবেশী দালাল চক্রের খপ্পরে পড়ে বড় মে’য়ে পারভীন আক্তারের স্বামী মোখলেছুর রহমানকে সৌদি আরব পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেন কি’শোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজে’লার গোবরিয়া আবদুল্লাহপুর ইউনিয়নের পশ্চিম আবদুল্লাহপুর গ্রামের ঠেলাগাড়ি চালক আবদুল হামিদ। বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে চড়া সুদে ঋণ করে প্রতারক চক্রের হাতে তুলে দেন সাড়ে চার লাখ টাকা। ছয় মাস আগের ঘটনা এটি।

সৌদি আরব পাঠানোর প্রথম দুই মাস ঠিকই কর্ম মিলে কপালে এবং বাড়িতে কিছু টাকাও পাঠাতে পেরেছিলেন মে’য়ের জামাই মোখলেছুর রহমান। কিন্তু দুই মাস পরই ভিসার মেয়াদ ও আকা’মা (কাজের অনুমতিপত্র) শেষ হয়ে যায়। মোখলেছুরের জীবনে নেমে আসে অবর্ণনীয় দু:খ-ক’ষ্টে’র পালা। পু’লিশি হ’য়’রানি এড়াতে আত্মগো’প’নে গিয়ে কা’টাতে হচ্ছে মানবেতর ব’ন্দি জীবন।

মঙ্গলবার দুপুরে কি’শোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজে’লার গোবিয়া আবদুল্লাহপুর ইউনিয়নের পশ্চিম আবদুল্লাহপুর গ্রাম সরেজমিন পরিদর্শনকালে মোখলেছুর রহমানের শ্যালক আসাদুল হক জানান, তার দুলাভাই এখন আত্মগো’প’নে ব’ন্দি অবস্থায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তিন দিনেও একবার তার মুখে খাবার জোটে না। মাঝে মধ্যে একটি রুটি দেওয়া হয় খেতে।

মোখলেছুর রহমানের শ্বশুর ঠেলাগাড়ি চালক আবদুল হামিদ জানান, এ ঘটনা জানিয়ে টাকা নিয়ে বিদেশে পাঠানোর কাজে মধ্যস্থতাকারী প্রতিবেশী ভাই স’ম্প’র্কের দালাল চক্রের মূলহোতা আবুল হাসিমের কাছে বারবার ধরনা দিয়েছেন। কিন্তু কোনো প্রতিকার পাননি। পরে তিনি থা’নায় অ’ভিযোগ করেন।

রোববার বিকালে এ ঘটনা ত’দ’ন্তে ঘটনাস্থলে যায় কুলিয়ারচর থা’না পু’লিশ। আর এ ঘটনা ত’দ’ন্তে বাড়িতে পু’লিশ যাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে একই দিন সন্ধ্যার পর ঠেলাগাড়ি চালক আবদুল হামিদের বাড়িতে হা’ম’লা চালায় ওই দালাল চক্রের লোকজন। এ সময় বাড়িতে থাকা না’রীদের মা’রপিট করে বাড়াবাড়ি করলে সবাইকে পুড়িয়ে মা’রার হু’মকি দিয়ে যায় তারা।

প্রবাসে আত্মগো’প’নে মানবেতর জীবনযাপনকারী মোখলেছুর রহমানের স্ত্রী’ পারভীন আক্তার জানান, আবুল হাসিমের ছে’লে ওয়ালী উল্লাহ ও নাতি রায়হানসহ কয়েকজন এ হা’ম’লায় অংশ নেয়।

এ সময় কথা হলে আবদুল হামিদের ভাই স’ম্প’র্কের প্রতিবেশী আবদুল হামিদের নাতি রায়হান দাবি করেন, সম্পূর্ণ বৈধভাবেই মোখলেছুর রহমানকে সৌদি পাঠানো হয়েছিল। এমন ঘটনা ঘটবে তারা বুঝতে পারেননি। প্রতিবেশী এবং স্বজন হিসেবে আবদুল হামিদের অনুরোধে তিনি তার এক আত্মীয়ের মাধ্যমে মোখলেছুর রহমানকে সৌদি আরবে পাঠানোর ব্যবস্থা করেছিলেন। এখানে তার ব্যক্তিগত কোনো লাভ-লোকসানের বিষয় ছিল না।

কুলিয়ারচর থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) গো’লাম মোস্তাফা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বিদেশে লোক পাঠিয়ে প্রতারণার অ’ভিযোগে একটি অ’ভিযোগ করা হয়েছে। আবার ওই অ’ভিযোগ ত’দ’ন্ত করে পু’লিশ আসার পর বিবাদী দল ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের ওপর হা’ম’লা চালানোরও একটি অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে। এ দুটি লিখিত অ’ভিযোগই ত’দ’ন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Back to top button