জাতীয়

‘মা’দ’কসহ আ’ট’ক’ আ.লীগ নেতাকে ছেড়ে দেওয়ার অ’ভিযোগ

কুমিল্লার মুরাদনগরে গাঁজা ও ইয়াবাসহ ওবায়দুল হাসান রাসেল নামে এক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদককে আ’ট’কের পর ছেড়ে দেওয়ার অ’ভিযোগ উঠেছে পু’লিশের বি’রু’দ্ধে।

শুক্রবার দুপুরে উপজে’লার পরমতলা বাজার থেকে তাকে আ’ট’ক করা হয়। প্রায় দুই ঘণ্টা থা’নাহাজতে আ’ট’ক রাখার পর জে’লা নেতাদের ‘তদবিরে’ এক ইউপি চেয়ারম্যানের জিম্মায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে। রাসেল (৪৫) পার্শ্ববর্তী দেবিদ্বার উপজে’লার গুনাইঘর উত্তর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন। তিনি জে’লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রোশন আলী মাস্টারের ‘ঘনিষ্ঠজন’ হিসেবে পরিচিত।

তবে পু’লিশের দাবি, রাসেলকে গাঁজা ও ইয়াবা দিয়ে ফাঁ’সানো হয়েছিল।

ধামঘর ইউনিয়নের পরমতলা এলাকার ইউপি সদস্য রাসেল মুন্সি জানান, ওবায়দুল হাসান রাসেল প্রায়ই মা’দ’ক বিক্রি করতে পরমতলা এলাকায় আসেন। এ নিয়ে তাকে কয়েক দফা সতর্ক করা হয়। শুক্রবার সকালে এক সহযোগীসহ মোটরসাইকেলযোগে ফের মা’দ’ক বিক্রির জন্য পরমতলা বাজারে আসলে স্থানীয় লোকজন তাকে ধাওয়া করে আ’ট’ক করেন। এ সময় তার কাছে ১০ পুরিয়া গাঁজা এবং ৫-৬ পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। তবে তার সহযোগী পালিয়ে যায়। পরে ৯৯৯ নাম্বারে কল দিলে পু’লিশ এসে রাসেলকে আ’ট’ক করে থা’নায় নিয়ে যায়। তাকে মা’দ’কসহ আ’ট’কের সময় বাজারের অনেক লোকজন দেখেছেন।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা ওবায়দুল হাসান রাসেল বলেন, পূর্বশত্রুতার জের ধরে পরমতলা বাজারে আমাকে আ’ট’ক করে মা’রধর করা হয়েছে। পরে খবর পেয়ে পু’লিশ গিয়ে ঘটনাস্থল থেকে আমাকে উ’দ্ধা’র করে। যারা আমা’র ওপর আক্রমণ করেছে তারাই আমাকে মা’দ’ক দিয়ে ফাঁ’সানোর পাঁয়তারা করেছে।

তার দাবি, মা’দ’ক বিক্রি করতে তিনি পরমতলা বাজারে যাননি। ওই রাস্তা হয়ে মুরাদনগর উপজে’লায় একটি প্রোগ্রামে যাচ্ছিলেন তিনি।

মুরাদনগর থা’নার ওসি আবুল হাশিম বলেন, গাঁজার পুরিয়া দিয়ে রাসেলকে ফাঁ’সানোর চেষ্টা করা হয়েছে। মুচলেকা নিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

Back to top button