জাতীয়

ছিনতাইকারীকে ধরিয়ে দিলেও ফোন পাননি জবি শিক্ষার্থী

রাজধানীর কাওরান বাজারে ছিনতাইকারীকে চেপে ধরে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন ছিনতাইয়ের শিকার ভুক্তভোগী এক শিক্ষার্থী। সেই ভিডিও এখন ভাই’রাল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ছিনতাইয়ের ঘটনায় ফোন হারিয়ে এখনো ফোন না পাওয়ায় সংবাদ সন্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী। শনিবার (২৩ জুলাই) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) সংবাদ সন্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী।

জানা যায়, ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর নাম পারিশা আক্তার। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রা’ণিবিদ্যা বিভাগের মাষ্টার্সের শিক্ষার্থী। তিনি বর্তমানে মাষ্টার্সের হাতি গবেষণায় থিসিস করছেন। ফোনে গবেষণার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য থাকায় ফোনটি হারিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী।

জানা যায়, রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে এ ঘটনা ঘটে। মিরপুর থেকে বাসে পুরান ঢাকায় যাচ্ছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এই শিক্ষার্থী। জানালা দিয়ে তার মোবাইল ফোনটি ছিনিয়ে নেয় এক ছিনতাইকারী। তাৎক্ষণিক তিনি বাস থেকে নেমে ছিনতাইকারীকে ধাওয়া করেও ধরতে পারেননি। এরই মাঝে ওই শিক্ষার্থী ঘটতে দেখেন আরেক ছিনতাইয়ের ঘটনা।

এক না’রীর ব্যাগ নিয়ে পালাচ্ছিল আরেক ছিনতাইকারী। হাতেনাতে তাকে ধরে ফেলেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী। মাটিতে ফেলে নিজের মোবাইল ফোন হা’রা’নোর রাগ ঝাড়তে দেখা যায় ব্যাগ ছিনতাইকারীর উপর। এই ঘটনার সময় সেখানে বেশকিছু লোক জড়ো হয়। তাদের একজন ছিলেন দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার ফটোসাংবাদিক জীবন আহমেদ। তার সহায়তায় আ’ট’কে রাখা ছিনতাইকারীর আরেক সহযোগীকে ধরে ফেলেন ওই শিক্ষার্থী।

আ’ট’কে রাখা দুই ছিনতাইকারীসহ অ’ভিযোগ নিতে ওই ছা’ত্রীকেও থা’নায় নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় পু’লিশের প্রতি ক্ষোভ জানান তিনি। তার বক্তব্য, একজন ছিনতাকারীকে ধরে তার কাছ থেকে তথ্য আদায় করে আরেকজনকে ধরেছেন তিনি। দুইজন ছিনতাইকারীকে পু’লিশে ধরিয়ে দিয়েছেন তিনি। এরপরও পু’লিশ তার ফোন উ’দ্ধা’র করতে পারেনি।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী সংবাদ সন্মেলনে বলেন, আমা’র ফোন যে চক্র চু’রি করেছে তাদের তো পু’লিশের হাতে দিয়েছি এখনো কেন ফোনটি পাচ্ছি না? আমা’র ফোন সেদিন রাতেও চালু হয়েছিলো এরপর অফ করে রাখা হয়। আমা’র ফোনটি উ’দ্ধা’রের দাবি জানাচ্ছি।

Back to top button