আন্তর্জাতিক

মাঙ্কিপক্স: শুরু আফ্রিকায়, ছড়িয়েছে বিশ্বের ৭৫ দেশে

বিশ্বব্যাপী মাঙ্কিপক্স সংক্রমণের মাত্রা বাড়ায় শনিবার মাঙ্কিপক্স নিয়ে বিশ্বব্যাপী জরুরি অব্স্থা ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম গেব্রিয়াসুস গণমাধ্যম বিবিসিকে বলেছেন, বিশ্বব্যাপী ৭৫টি দেশে মাঙ্কিপক্স ছড়িয়েছে।১৬ হাজারেরও বেশি মানুষ এ রোগে আ’ক্রা’ন্ত হওয়ার পর এটি নিয়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

মাঙ্কিপক্স রোগটির নামের উৎপত্তি হয়েছে মাংকি (বাঁনর) থেকে। কারণ রোগটি প্রথমে একটি বাঁনরের মধ্যেই পাওয়া গিয়েছিল। প্রা’ণঘাতী স্মলপক্স ভাই’রাসের সঙ্গে এটির সংযোগ আছে। স্মলপক্স ভাই’রাস ১৯৮০ এর দশকে নির্মূল করা সম্ভব হয়। মাঙ্কিপক্স ভাই’রাস স্মলপক্স ভাই’রাসের মতো এত প্রা’ণঘাতী না।সময়ের পরিক্রমায় আফ্রিকা থেকে বিশ্বের কয়েকটি মহাদেশে বিরল রোগ মাঙ্কিপক্সের বিস্তার ঘটেছে সেটির তালিকা প্রকাশ সংবাদ সংস্থা এএফপি।

১৯৭০: মানবদেহে প্রথম মাঙ্কিপক্স শনাক্ত

মানবদেহে ১৯৭০ সালে প্রথম মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়। কঙ্গোর ৯ বছর বয়সী এক বালকের দেহে মেলে মাঙ্কিপক্সের উপস্থিতি।

এরপর এটি জাতিগতভাবে ছড়িয়ে পড়ে। আফ্রিকার ১১টি দেশে মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়। ভাই’রাসটি আ’ক্রা’ন্ত প্রা’ণীর সংস্প’র্শের মাধ্যমে ছড়ায়।

২০০৩: আফ্রিকার বাইরে প্রথম মাঙ্কিপক্স শনাক্ত

২০০৩ সালের জুন মাসে যু’ক্তরাষ্ট্রে মাঙ্কিপক্স পৌঁছে যায়। যা ছিল আফ্রিকার বাইরে প্রথম কেস।ধারণা করা হয় ঘানা থেকে আনা আ’ক্রা’ন্ত ইঁদুরের মাধ্যমে যু’ক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করে এ ভাই’রাস। ওই সময় একটি প্রেইরি ডগের দেহে পাওয়া যায় মাঙ্কিপক্স।সব মিলিয়ে যু’ক্তরাষ্ট্রে ৮৭টি মাঙ্কিপক্সের কেস রেকর্ড করা হয়। কিন্তু কেউ এতে মৃ’ত্যু বরণ করেননি।

২০১৭: এ বছর আফ্রিকার দেশ নাইজেরিয়াতে ছড়িয়ে পড়ে মাঙ্কিপক্স। ওই বছর ২০০ জনের দেহে এটি শনাক্ত হয়। মৃ’ত্যুর হার ছিল প্রায় ৩ ভাগ। এর পরের পাঁচ বছর বিশ্বব্যাপী বিক্ষিপ্ত বেশ কয়েকটি কেসের ব্যাপারে জানা যায়। বিশেষ করে যু’ক্তরাজ্য, ই’স’রাইল, সিঙ্গাপুর এবং যু’ক্তরাষ্ট্রে নাইজেরিয়া থেকে ফেরত ব্যক্তিদের দেহে মেলে এটি।

মে ২০২২: আফ্রিকার বাইরে ব্যাপক হারে আ’ক্রা’ন্ত

এ সময়টায় আফ্রিকার বাইরে অসংখ্য মাঙ্কিপক্সে শনাক্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া যায়। যারা কেউ আফ্রিকা যায়নি। তবে আ’ক্রা’ন্তদের বেশিরভাগ ছিলেন সমকা’মী পুরুষ। ভাই’রাস ছড়িয়ে পড়ার নতুন প্রা’ণকেন্দ্রে পরিণত হয় ইউরোপ।

মে মাসের শেষ দিকে:

এ সময়টায় মাঙ্কিপক্সে প্রতিরোধ করতে স্মলপক্সের ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা জানায় যু’ক্তরাষ্ট্র। তারা জানায় স্মলপক্সের ভ্যাকসিন মাঙ্কিপক্স প্রতিরোধে কার্যকর। যারা আ’ক্রা’ন্ত রোগীর সংস্প’র্শে এসেছিলেন তাদের ভ্যাকসিন দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়। এরপর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ক’রো’নার ভ্যাকসিনের মতো কেন্দ্রীয়ভাবে ভ্যাকসিন দেওয়ার উদ্যোগ নেন।

জুন: এক হাজারের বেশি আ’ক্রা’ন্ত

জুনের শুরুতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান জানান বিশ্বের ২৯টি দেশে এক হাজার মানুষের আ’ক্রা’ন্ত হওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছেন তারা।

জুলাই: ৭০টি দেশের ১৪ হাজার মানুষ আ’ক্রা’ন্ত

এ মাসেই সবচেয়ে বেশি আ’ক্রা’ন্তের সন্ধান পাওয়া যায়। যার প্রেক্ষিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করতে বাধ্য হয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

Back to top button