জাতীয়

ইলিয়াসের মা’ম’লা প্রত্যাহার চাইলেন সুবাহ

যৌতুকের অ’ভিযোগে গায়ক ইলিয়াস হোসাইনের বি’রু’দ্ধে করা মা’ম’লা প্রত্যাহার করতে চেয়েছেন অ’ভিনেত্রী শাহ হু’মায়রা হোসেন সুবাহ। আজ রবিবার ঢাকার না’রী ও শি’শু নি’র্যা’তন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর বিচারক আবেরা সুলতানা খানমের আ’দা’লতে সাক্ষ্যগ্রহণের সময় তিনি একথা বলেন।

এদিন মা’ম’লার সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য দিন ধার্য ছিল। এজন্য আ’দা’লতে সাক্ষ্য দিতে আসেন সুবাহ।সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হলে তিনি মৌখিকভাবে ইলিয়াসের বি’রু’দ্ধে মা’ম’লা চালাবেনা বলে বিচারককে বলেন সুবাহ। সুবাহ আ’দা’লতে বলেন, ‘আমাদের দুজনের মধ্যে ডিভোর্স হয়ে গেছে। আমি আর এ মা’ম’লা চালাতে চাই না। আমি মা’ম’লা প্রত্যাহার করতে চাই। ‘ এরপর বিচারক আ’সা’মি ও বাদীর উপস্থিতিতে মা’ম’লা প্রত্যাহারের বিষয় শুনানি জন্য আগামীকাল সোমবার দিন ধার্য করেন।
এদিকে গত ৩ জানুয়ারি যৌতুকের জন্য নি’র্যা’তনের অ’ভিযোগে বনানী থা’নায় মা’ম’লা’টি করেন সুবাহ। চলতি বছরের মা’র্চ মাসে মা’ম’লার ত’দ’ন্তকারী কর্মক’র্তা পু’লিশের না’রী সহায়তা ও ত’দ’ন্ত বিভাগের উপ-পরিদর্শক মাসুমা আফ্রাদ ইলিয়াসকে একমাত্র আ’সা’মি করে অ’ভিযোগ পত্র দাখিল করেন। মা’ম’লায় সাক্ষী করা হয়েছে ১১ জনকে। এরপর গত ১৯ মে আ’দা’লত অ’ভিযোগপত্র গ্রহণ করেন। গত ১৯ জুন আ’দা’লত আ’সা’মি ইলিয়াসের বি’রু’দ্ধে অ’ভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন।

মা’ম’লার ত’দ’ন্তকারী কর্মক’র্তা মাসুমা আফ্রাদ অ’ভিযোগ পত্রে উল্লেখ করেন, সুবাহ একজন অ’ভিনয়শিল্পী এবং আ’সা’মি ইলিয়াস একজন কণ্ঠশিল্পী। ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে তাদের পরিচয়। পরিচয়ের সূত্র ধরেই প্রে’মের স’ম্প’র্ক। পরে দুই পরিবারের সম্মতিতে ওই বছরের ১ ডিসেম্বর ই’স’লা’মী শরীয়া মোতাবেক বিয়ে হয়। বিয়ের সময় আ’সা’মি ইলিয়াসের চাহিদা অনুযায়ী যৌতুক হিসেবে ১২ লাখ টাকা মূল্যের রোলেক্স ব্র্যান্ডের একটি ঘড়ি, ২৫ হাজার টাকা মূল্যের আরেকটি ঘড়ি, এক লাখ টাকার সোনার আংটি, গলার চেইনের জন্য ৫০ হাজার টাকা এবং বিয়ের কাপড় বাবদ দুই লাখ টাকা দেওয়া হয়।

এতে সন্তুষ্ট না হয়ে সুবাহর কাছে ফ্ল্যাট কেনার জন্য ৫০ লাখ টাকা ও গাড়ি কেনার জন্য ৩০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন ইলিয়াস। এছাড়া সুবাহর মায়ের কাছে যৌতুক হিসেবে ইউটিউব চ্যানেল কেনার জন্য ১০ লাখ টাকা দাবি করেন। তখনও ইলিয়াসকে আড়াই লাখ টাকা দেওয়া হয়।

অ’ভিযোগ পত্রে আরো বলা হয়, সুবাহ জানতে পারেন আ’সা’মি ইলিয়াস একাধিক বিয়ে করেছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে সুবাহকে শা’রীরিক ও মানসিক নি’র্যা’তন করেন ইলিয়াস। এরপর ওই বছরের ২৭ ডিসেম্বর আ’সা’মি ইলিয়াস যৌতুক হিসেবে আরও ৮০ লাখ টাকা দাবি করেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া চলছিল। এর জেরে ইলিয়াস কাচের গ্লাস ভে’ঙে তার ভাঙা অংশ দিয়ে সুবাহকে মা’রতে যান। তখন সুবাহ থামাতে গেলে তার বাম হাত জ’খ’ম হয়। পরবর্তীসময়ে ইলিয়াস বিষয়টি নিয়ে সুবাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং এ ধরনের ঘটনা আর ঘটবে না বলে সুবাহকে প্রতিশ্রুতি দেন।

পরদিন ২৮ ডিসেম্বর ইলিয়াস আবার সুবাহর কাছে ৮০ লাখ টাকা দাবি করেন। এতে সুবাহ অস্বীকৃতি জানালে ইলিয়াস এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি, লাথি মা’রেন এবং চুলের মুঠি ধরে দেওয়ালের সঙ্গে ঠুকে জ’খ’ম করে। সুবাহ অ’সুস্থ হয়ে পড়লে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে চিকিৎসা নেন। মেডিকেল সনদপত্রে সুবাহকে মা’রপিট করে সাধারণ জ’খ’ম করার বিষয়টি প্রকাশ পায়। ত’দ’ন্তকালে ইলিয়াসের বি’রু’দ্ধে না’রী ও শি’শু নি’র্যা’তন দমন আইন (সংশোধনী/২০০৩) এর ১১(গ) ধারায় অ’প’রা’ধ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে বলে অ’ভিযোগ পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।

Back to top button