ইসলাম ও জীবন

হঠাৎ অশ্লীল কিছু দেখলে যে দোয়া পড়বেন

শয়তানের কাজই হলো মানুষকে পথভ্রষ্ট করা। আর বর্তমান প্রযু’ক্তির যুগে এই বিষয়টা আরও সহ’জ হয়েছে। আল্লাহর সঙ্গে চ্যালেঞ্জ করে শয়তানকে মানুষকে বিপথে নেওয়ার আপ্রা’ণ চেষ্টা করে। এতে সে নানা কৌশলও খাটায়।
কেননা আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআনে জানিয়ে দিয়েছেন, ‘আমিও তোমা’র সরল পথে বনি আদমের জন্য ওঁৎ পেতে থাকব। অ’তঃপর আমি তাদের কাছে আসব। তাদের সামনে থেকে, পেছন থেকে, ডান দিক থেকে, বাম দিক থেকে। তুমি তাদের অধিকাংশকে কৃতজ্ঞ বান্দা হিসেবে পাবে না।’ (সুরা আরাফ : ১৬-১৭)

মানুষকে পথভ্রষ্ট করতে নজরকে বড় অ’স্ত্র হিসেবে নিয়েছে শয়তান। এর দ্বারা বনি আদমকে।ডুবিয়ে দেয় পাপের বিষাক্ত সাগরে। বর্তমান সময়ে ফেসবুক-ইনস্টাগ্রামসহ নানা মাধ্যমে অশ্লীল ও অসঙ্গতিপূর্ণ নানা বিষয় চোখের সামনে পড়ে যায়। যা বড় ধরণের পাপাচারের দিকে নিয়ে যায়।

বর্তমানে প্রযু’ক্তি অ’পব্যবহারের ফলে মানুষ নানান ধরনের অন্যায়-অ’প’রা’ধ তথা অশ্লীলতায় নিয়োজিত হচ্ছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় আম’রা নানা অশ্লীল জিনিস দেখছি। আমি ভাবি, কেউ আমাকে দেখছে না। আল্লাহ আমাকে স্ম’রণ করিয়ে দিচ্ছেন; না বান্দা! কেউ দেখছে না, এমন নয়। তোমা’র সঙ্গে চলতে থাকা মানুষ বা পৃথিবীর কোনো মানুষ যদি না দেখে, তোমাকে যিনি এ চোখ দান করেছেন, তিনি কিন্তু দেখছেন সেটা মনে রাখা দরকার। তিনি পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করেন, ‘তিনি (আল্লাহ) জানেন চোখের চো’রাচাহনি এবং সেইসব বিষয়ও, যা বক্ষদেশ লুকিয়ে রাখে।’ (সুরা মুমিন : ১৯)

কেউ কেউ মনে করে যে, একবার দেখলে সমস্যা নেই (সুতরাং একবার তাকাই)। এটা তাদের বুঝার ভুল। প্রথম কাজ তো দৃষ্টি অবনত রাখা, যার নির্দেশ আল্লাহ কোরআনুল কারিমে দিয়েছেন। এটি রক্ষা করার পরও যদি হঠাৎ দৃষ্টি পড়ে যায় তাহলে করণীয় কী? এ স’ম্প’র্কে এক সাহাবী রাসূলে কারিম (সা.) কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বললেন, ‘তুমি তোমা’র দৃষ্টি ফিরিয়ে নাও’। (সুনানে আবু দাউদ: ২১৪৮)

আর আলী রা. কে নবীজি সা. বলেছেন, ‘হে আলী! (হঠাৎ) দৃষ্টি পড়ে যাওয়ার পর আবার দ্বিতীয়বার তাকিয়ো না। কারণ, (হঠাৎ অনিচ্ছাকৃত পড়ে যাওয়া) প্রথম দৃষ্টি তোমাকে ক্ষমা করা হবে, কিন্তু দ্বিতীয় দৃষ্টি ক্ষমা করা হবে না। (তিরমিজি: ২৭৭৭)

আমা’র প্রিয় চোখ। আমি যদি তা আল্লাহর হুকুম মতো ব্যবহার না করি, হারাম জিনিস দেখি, তাহলে আমা’র চোখই কাল কিয়ামতের দিন আল্লাহ তায়ালার দরবারে আমা’র নামে নালিশ করবে। হে আল্লাহ! সে আমা’র দ্বারা অমুক পাপ করেছে। অমুক হারাম বস্তুর দিকে তাকিয়েছে। কোরআনুল কারিমে ইরশাদ হয়েছে, ‘তাদের কান, তাদের চোখ, তাদের ত্বক তাদের কৃতকর্ম সম্বন্ধে সাক্ষী দিবে তাদের বি’রু’দ্ধে। (সুরা হা-মীম আস সাজদাহ : ২০)

হঠাৎ অশ্লীল কিছু চোখে পড়লে যে দোয়া পড়বেন

অশ্লীলতা ও মনের খা’রা’প আসক্তি থেকে রক্ষা পেতে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এক সাহাবিকে একটি দোয়া শিখিয়েছেন। দোয়াটি হলো,

اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ شَرِّ سَمْعِي وَمِنْ شَرِّ بَصَرِي وَمِنْ شَرِّ لِسَانِي وَمِنْ شَرِّ قَلْبِي وَمِنْ شَرِّ مَنِيِّي

উচ্চারণ : ‘আল্লাহু’ম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিন শাররি সাময়ি, ওয়া মিন বাচারি ওয়া মিন শাররি লিসানি ওয়া মিন শাররি ক্বালবি ওয়া মিন শাররি মানিয়্যি।’

অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে কানে মন্দ কথা শোনা থেকে আশ্রয় চাই। চোখ দিয়ে মন্দ কিছু দেখা থেকে আশ্রয় চাই। জিহ্বা দিয়ে মন্দ কিছু বলা থেকে আশ্রয় চাই। অন্তরের খা’রা’প চিন্তা থেকে আশ্রয় চাই। দেহের কা’মনা-বাসনার খা’রা’প চিন্তা থেকেও আশ্রয় চাই।’ (আবু দাউদ, তিরমিজি, নাসাঈ,২০/১৪৮৪)

Back to top button