জাতীয়

চেয়ারম্যানের বি’রু’দ্ধে অর্থ আত্মসাতের অ’ভিযোগ

বিভিন্ন অনিয়ম, দু’র্নী’তি ও ক্ষমতার অ’পব্যবহারের অ’ভিযোগ উঠেছে পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজে’লার খানম’রিচ ইউপি চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন খান মিঠুর বি’রু’দ্ধে। নির্বাচনে হেভি ওয়েট আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে হারিয়ে গত ডিসেম্বরে তিনি উপজে’লার সর্বকনিষ্ঠ চেয়ারম্যান হিসাবে জয়লাভ করেন তিনি।

মাত্র সাত মাসের মা’থায় তার বি’রু’দ্ধে এসব অ’ভিযোগ তুলে ইউনিয়নবাসীর পক্ষে পাঁচজন স্বাক্ষরিত একটি অ’ভিযোগপত্র উপজে’লা প্রশাসন বরাবর দিয়েছেন।

অ’ভিযোগে স্বাক্ষরকারীরা খানম’রিচ ইউপির দাশম’রিচ গ্রামের আরিফুর রহমান, বৃদ্ধম’রিচ গ্রামের মো. ছাইদুর, বৈদ্যম’রিচ গ্রামের মো. আবুল, মাদারবাড়িয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম ও কালিয়ানজিরি গ্রামের সুলতান মাহমুদ।

লিখিত অ’ভিযোগে তার বি’রু’দ্ধে ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রাকৃতিক দু’র্যোগের মানবিক সহায়তার ২ লক্ষ টাকা, ইজিজিপিপি প্রকল্পের কোনো কাজ না করে ৯৬ হাজার টাকা, গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণের ২ লক্ষ ৯১ হাজার টাকা, টিআর বরাদ্দের কোনো কাজ না করে ১ লক্ষ ৪৭ হাজার টাকা, এলজিএসপি-৩ এর শ্রেণিকক্ষ নির্মাণের ৩ লক্ষ ১৩ হাজার টাকা, এডিপি প্রকল্পের মোটা অংকের টাকা ছাড়াও সরকারি নিয়মের বাইরে গ্রাম আ’দা’লত ফি, ওয়ারিশান সার্টিফিকেট, জন্ম ও মৃ’ত্যু নিবন্ধন সনদে অ’তিরিক্ত ফি আদায়ের কথা লেখা হয়েছে।

অ’ভিযোগে ২নং স্বাক্ষরকারী সাইদুর রহমান যুগান্তরকে জানান, তিনি দুর্ণীতি, অনিয়মের বিষয়ে কিছু জানেন না।

তিনি বলেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজে’লা আওয়ামী লীগের ধ’র্ম বিষয়ক সম্পাদক দুলাল মাস্টারসহ অনেকে মিটিং করে অ’ভিযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে তাদের কথায় স্বাক্ষর করেছি। অ’ভিযোগে কী কী অনিয়ম আছে জানাতে চাইলে তিনি কিছু বলতে পারেননি।

অ’ভিযোগের ৩য় স্বাক্ষরকারী মো. আবুল অন্যান্য স্বাক্ষরকারীদের কাছে জানার কথা বলে ফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

অ’ভিযোগে ৪র্থ স্বাক্ষরকারী জাহাঙ্গীর মিটিংয়ের কথা অস্বিকার করে বলেন, কোনো মিটিং হয় নাই আম’রা পাঁচজন মিলেই অ’ভিযোগ দিয়েছি।

অ’ভিযু’ক্ত চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন খান মিঠু বলেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান আসাদুর রহমান আমা’র সঙ্গে নির্বাচনে হেরে যাওয়ায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী দুলাল মাস্টার আমাকে হেয় করতে জোট বেঁধে এসব অ’পপ্রচার চালাচ্ছে। আর বিভিন্ন প্রকল্পের বিষয়ে যে অ’ভিযোগ তোলা হচ্ছে তাও সঠিক নয়। কিছু কাজ করা হয়েছে আর আমা’র ইউনিয়ন নিচু এলাকা হওয়ায় ব’ন্যার পানির কারণে কিছু কাজ করা হয়নি; যা ব’ন্যা পরবর্তী সময়ে করা হবে। আসলে আমি এলাকার নোংরা রাজনীতির শিকার হচ্ছি। তারা আমাকে নির্বাচনে জেতার পরে হু’মকি দিয়েছিল ছয় মাসও চেয়ারম্যান থাকতে দেবে না এটা তারই চেষ্টা। আল্লাহ ও আমা’র ইউনিয়নের জনগণ আমা’র সঙ্গে আছেন।

উপজে’লা নির্বাহী কর্মক’র্তা নাহিদ হাসান খান বলেন, কর্মক’র্তাদের উপস্থিতিতে বিভিন্ন কর্মসূচির কাজ সম্পন্ন করা হয়। আর কোনো প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন না করে বিল ছাড় করা হয় না। এরপরেও অ’ভিযোগ ত’দ’ন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Back to top button