জাতীয়

মাঙ্কিপক্স ঠেকাতে নির্দেশিকা জারি করলো ভা’রত সরকার

মাঙ্কিপক্স রোগী এবং তাদের থেকে সংক্রমণ এড়াতে নির্দেশিকা জারি করেছে ভা’রত সরকার। নির্দেশিকাগু’লির মধ্যে রয়েছে -১) ২১ দিনের বিচ্ছিন্নতা
২) মাস্ক পরা
৩) হাতের স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করা
৪) ক্ষতগু’লি সম্পূর্ণরূপে ঢেকে রাখা
৫) সম্পূর্ণরূপে নিরাময়ের জন্য অ’পেক্ষা করা
৬) রোগীর দেখভাল করার সময় মাস্ক ও গ্লাভস বাধ্যতামূলক
৭) আ’ক্রা’ন্ত ব্যক্তিদের অন্তঃসত্ত্বা ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম এমন মানুষদের সংস্প’র্শ এড়িয়ে চলা
৮) ত্বকে র্যাশ, কনজাংটিভাইটিস, মুখের আলসার, জ্বরের মতো নানা উপসর্গের ক্ষেত্রে আলাদা আলাদা চিকিৎসা অনুসরণ করা

নয়াদিল্লি মাঙ্কিপক্সের একটি নিশ্চিত কেস রিপোর্ট করেছে, দেশে এই জাতীয় রোগীর মোট সংখ্যা এখন চার। এই নির্দেশিকা শুধুমাত্র মাঙ্কিপক্স আ’ক্রা’ন্ত রোগী ও তাদের পরিবারের জন্য। শেষবার আ’ক্রা’ন্তের সংস্প’র্শে আসার পর ২১ দিন আইসোলেশনে থাকতে হবে পরিবারের সদস্যদেরও। যে স্বাস্থ্যকর্মীরা মাঙ্কিপক্স রোগীদের সংস্প’র্শে আসবেন তাদের দেহে কোনো উপসর্গ না থাকলেও তাদের ২১ দিন নজরদারিতে থাকতে বলা হয়েছে। মাঙ্কিপক্স হল একটি ভাই’রাল জুনোসিস – যা পশুদের থেকে মানুষের মধ্যে সংক্রমিত হয় – ক্লিনিক্যালি কম গুরুতর হলেও গুটিবসন্ত রোগীদের লক্ষণগু’লির সাথে এর অনেক মিল আছে। এখন অবধি, দিল্লির প্রথম মাঙ্কিপক্স রোগীর ১৪ জন পরিচিতকে সনাক্ত করা হয়েছে এবং তাদের মধ্যে কারোর দেহেই কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি।

সূত্র মা’রফত জানা গেছে পরিচিতিদের মধ্যে একজন শরীরে ব্যথার অ’ভিযোগ করেছিলেন তবে তিনি এখন ভাল আছেন এবং তার কোনও লক্ষণ নেই। আরেকজন স’ন্দেহভাজন ব্যক্তিকে দিল্লির লোক নায়ক জয় প্রকাশ (এলএনজেপি) হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয়েছে এবং নমুনাগু’লি পুনের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজিতে পাঠানো হয়েছে। সাম্প্রতিক ঘটনাবলীর কারণে কেন্দ্র মাঙ্কিপক্স ব্যবস্থাপনার জন্য নির্দেশিকা জারি করেছে। দিল্লি সরকার তার হাসপাতাল এবং ১১টি জে’লাকে নির্দেশিকা অনুসরণ করার নির্দেশ দিয়েছে।

বিভিন্ন জে’লায় নজরদারি টিম তৈরী করা হয়েছে। এই বছরের মে মাসে, বেশ কয়েকটি দেশে মাঙ্কিপক্সের একাধিক কেস সনাক্ত করা হয়েছিল। বিশ্বব্যাপী, এখন ৭৫ টি দেশে মাঙ্কিপক্সের ১৬,০০০-এরও বেশি কেস রিপোর্ট করা হয়েছে এবং প্রাদুর্ভাবের কারণে এখন পর্যন্ত পাঁচটি মৃ’ত্যু হয়েছে।

Back to top button