জাতীয়

প্রতিব’ন্ধীর ভ্যান চু’রি, আয়ের পথ হারিয়ে দিশেহারা পরিবার

২৭ বছর বয়সী রাজিব উদ্দিন। জন্মগতভাবেই সে প্রতিব’ন্ধী। মা-স্ত্রী’ ও এক সন্তানকে নিয়ে তার সংসার। ভ্যানগাড়ি চালিয়েই সংসার চালান তিনি। কিন্তু আয়ের একমাত্র সম্বলটি হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তিনি। প্রতিব’ন্ধী রাজিব ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজে’লার বকুয়া ইউনিয়নের দুলালপাড়া এলাকার মৃ’ত আশরাফ আলীর ছে’লে।

নিজের কোন জমি-জায়গা নেই। প্রধানমন্ত্রীর উপহারের দেওয়া আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরে থাকেন তিনি। গত সোমবার (১ আগস্ট) ভোর রাতে তার ভ্যানগাড়িটি চু’রি হয়ে যায়। এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বারকে একাধিকবার বলেও কোনো সমাধান না পেয়ে উল্টো ধমক খেয়ে বাড়ি ফিরেন তিনি।

রাজিব জানান, আমি বাড়িতে না থাকায় গত সোমবার ভোর রাতে আমা’র শেষ সম্বলটুকু চু’রি হয়ে যায়। পরে বকুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আবু তাহের এর কাছে গেলে তিনি বলেন, তোমা’র ভ্যান চু’রি হয়েছে তো আমি কী করব। পরে হরিপুর উপজে’লার ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম পুস্পর কাছে গেলে তিনি থা’নায় অ’ভিযোগ দিতে বলেন। অ’ভিযোগ দেওয়ার এক সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও ভ্যানগাড়িটি উ’দ্ধা’র হয়নি।

রাজিব আরও বলেন, আমি প্রতিব’ন্ধী। ঠিকভাবে হাঁটাচলা করতে পারি না। নিজের জমি নাই। সরকারের দেওয়া ঘরে থাকি। শেষ সম্বলটুকু চু’রি হয়ে যাওয়ায় আমি এখন নিঃস্ব। এত লোকের কাছে গেলাম কেউ আমাকে সাহায্য করল না।

রাজিবের মা রাবিয়া বলেন, ছে’লে খুব ক’ষ্ট করে আমাদের খাবার যোগান দেয়। চেয়ারম্যানের কাছে গেলে তিনি কিছুই করতে পারবে না বলে ধমক দিয়ে তাড়িয়ে দিচ্ছে। গরিবের কী কোনো দাম নাই?

রাজিবের স্ত্রী’ স্বর্ণালী আক্তার বলেন, আমা’র স্বামী বাড়িতে না থাকায় এই সুযোগে চো’র এসে আমাদের ভ্যানগাড়িটি চু’রি করে নিয়ে যায়। আম’রা খুব ক’ষ্টে আছি।

এ ব্যাপারে বকুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবু তাহেরের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও মুঠোফোনে কোন সাড়া পাওয়া যায়নি।

হরিপুর থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) মো. তাজুল ই’স’লা’ম বলেন, গত সোমবার ভোরে রাজিব উদ্দিন নামে এক প্রতিব’ন্ধীর ভ্যানগাড়ি চু’রি হয়ে যায়। তিনি থা’নায় একটি অ’ভিযোগ দিয়েছেন। ভ্যান উ’দ্ধা’রে পু’লিশ কাজ করছে।

Back to top button