জাতীয়

উদ্বোধনের পরদিনই বিআরটিসি বাস বন্ধ করে দিল মালিক সমিতি

উদ্বোধনের একদিন পরেই ফরিদপুরের বোয়ালমা’রী থেকে পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকা চলাচলের বিআরটিসি বাস বন্ধ করে দিয়েছে জে’লা বাস মালিক সমিতি। এ নিয়ে বোয়ালমা’রীবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

বিআরটিসি বাস চলাচল করতে দেওয়া না হলে বোয়ালমা’রী উপজে’লায় ফরিদপুর জে’লা বাস মালিক সমিতির কোনো বাস ঢুকতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন বিক্ষুব্ধ’রা।স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর ফরিদপুরের বিভিন্ন উপজে’লা থেকে দাবি ওঠে বিআরটিসি বাস চলাচলের। সেই দাবির প্রেক্ষিতে বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ ফরিদপুর, নগরকান্দা থেকে বাস চালু করে।

মঙ্গলবার বোয়ালমা’রী থেকে বিআরটিসি বাস চালু করে কর্তৃপক্ষ। উদ্বোধনের পরদিন বুধবার সকাল ৭টায় বোয়ালমা’রী বাস টার্মিনাল থেকে যাত্রী নিয়ে ঢাকা গু’লিস্তানের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয় বাসটি। পথিমধ্যে ভাঙ্গা বাস টার্মিনালের কাছে বাসটি আ’ট’কে দেয়া হয়। বাস থেকে নামিয়ে দেয়া হয় যাত্রীদের। ফলে চরম বিপাকে পড়েন বাসের যাত্রীরা।

বাসের একাধিক যাত্রী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে জানান, ভাঙ্গা বাস টার্মিনালে আসার পর বেশ কয়েক ব্যক্তি বাসের চালকের কাছ থেকে চাবি ছিনিয়ে নেয়। তারা বাসের চালক ও হেলপারকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। বাসের যাত্রীদের সঙ্গেও তারা অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন।

বিআরটিসি বাস বন্ধ করে দেবার খবর বোয়ালমা’রীতে পৌঁছালে স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। বোয়ালমা’রীর সব শ্রেণি-পেশার মানুষ বিআরটিসি বাস বন্ধের তীব্র নিন্দা জানান এবং দ্রুতই বাস চলাচলের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান প্রশাসনের কাছে। একই সঙ্গে তারা ফরিদপুর জে’লা বাস মালিক গ্রুপের কর্মক’র্তাদের বি’রু’দ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

বোয়ালমা’রীর বেশ কয়েকজন ক্ষুব্ধ ব্যক্তি জানান, বিআরটিসি বাস চলাচল বন্ধ করা হলে ফরিদপুর জে’লা বাস মালিক সমিতির কোনো গাড়িই বোয়ালমা’রীর ওপর দিয়ে চলাচল করতে দেওয়া হবে না।বিআরটিসির (কুমিল্লা ডিপো) ম্যানেজার (অ’পারেশন) মো. কা’ম’রুজ্জামান জানান, বিআরটিসির বাস বন্ধ করার কোনো এখতিয়ার নেই জে’লা বাস মালিক গ্রুপের। পরিবহণ সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে সরকার বন্ধ পরিকর। সেই হিসেবে বিআরটিসি বাস চলাচল বন্ধ করা ঠিক হয়নি।

ফরিদপুর জে’লা বাস মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক আনিছুর রহমান বলেন, বিআরটিসি সারা দেশের ২৩ রুটে যে রুট পারমিট দিয়েছে সেখানে কোনো উপজে’লার অনুমতি নেই। তাছাড়া জে’লা বাস মালিক গ্রুপ থেকেও অনুমতি নেয়নি। ফলে আম’রা বিআরটিসি বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছি।

এ বিষয়ে পু’লিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান (সদ্য পদোন্নতিপ্রাপ্ত অ’তিরিক্ত ডিআইজি) বলেন, বাস চলাচলের বিষয়ে একটি ঝামেলার সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে। আশা করছি এ সমস্যাটির সমাধান হয়ে যাবে।

Back to top button